বিভিন্ন কারণে ডার্ক সার্কল হয়| ঠিকঠাক ঘুমের অভাব, মদ ও ক্যাফেইনে আসক্তি আর পর্যাপ্ত পরিমাণে জলপান না করার অভ্যেস চোখের নিচে ডার্ক সার্কল দেখা দেওয়ার কয়েকটি সম্ভাব্য সাধারণ কারণ হতে পারে| চোখের নিচের কোমল সংবেদনশীল অংশটি নানা কারণে পাতলা হয়ে যায়, এতে জলের পরিমাণ কমে যায় আর রক্তজালিকাগুলি বেশি প্রকট হয়ে ওঠে| এর ফলে চোখের নিচে বিশ্রি ডার্ক সার্কল দেখা দেয়| তবে যে সব খাবারে প্রচুর পরিমাণে জল আছে আর নানা খনিজ উপাদানে সমৃদ্ধ, সেগুলি নিয়মিতভাবে খাওয়ার অভ্যাস করলে ডার্ক সার্কলের ক্ষেত্রে চোখে পড়ার মতো তফাৎ দেখা যায়| খাবারের তালিকায় এগুলি রেখে দেখুন, ডার্ক সার্কল কেমন ফিকে হয়ে গেছে বা ধীরে ধীরে অদৃশ্য হয়ে গেছে!

শসা
 

শসা

শসাতে আছে প্রচুর পরিমাণে জলীয় উপাদান, যার ফলে সৌন্দর্যরক্ষায় এটির অবদান অনস্বীকার্য। প্রতিদিনের খাবারে কয়েক টুকরো শসা যোগ করুন, আপনার শরীরে আর ত্বকে এটি পর্যাপ্ত পরিমাণে জল সরবরাহ করবে এবং দেখবেন এর ফলে ত্বকের নানা সমস্যা কমে যাবে। শসায় আছে ভিটামিন ‘কে’, যা ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বা ইলাস্টিসিটি বাড়াতে সহায়তা করে।

তরমুজ
 

তরমুজ

অন্য সব খাবারের তুলনায় তরমুজে জলের পরিমাণ বেশি, 92%। ফলে তরমুজ খেলে প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই শরীরে জলের আনুপাতিক পরিমাণ ঠিকঠাক হয়ে গিয়ে শরীর ‘রিহাইড্রেটেড’ হয়ে যায়। তরমুজে আছে বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টস, যা আমাদের চোখের সুস্বাস্থ্য  বজায় রাখে আর ডার্ক সার্কল কমায়। সারা দিনে নিয়ম করে কয়েক টুকরো তরমুজ এমনিই  খান অথবা ইচ্ছে করলে ফলের রস বা স্মুদি বানানোর সময়েও ব্যবহার করতে পারেন।

টোম্যাটো
 

টোম্যাটো

লাইকোপিনের সমৃদ্ধতম উৎস টোম্যাটো চোখের চারপাশের সূক্ষ্ম রক্তজালিকাগুলিকে সুরক্ষা দেয়। এটি চোখের রক্তপ্রবাহকেও উন্নত করে। প্রতিদিন অন্তত একটি মাঝারি মাপের টোম্যাটো বা সাতটি চেরি টোম্যাটো স্যালাডে মিশিয়ে খান।

বিটরুট
 

বিটরুট

বিটরুটে আছে কিছু অত্যাবশ্যক উপাদান, যা ত্বকের রং ফর্সা আর স্বাস্থ্যের দীপ্তিতে উজ্জ্বল করে তোলে| বিটরুটের বিটালেইন অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টস চোখের স্বাস্থ্যরক্ষায় অত্যন্ত উপকারী। ডার্ক সার্কল কমানো ছাড়াও এটি দৃষ্টিশক্তিও বাড়ায়। সবচেয়ে বেশি সুফল পেতে গেলে প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস করে বিটরুটের রস পান করুন।

প্রোটিন
 

প্রোটিন

প্রোটিনসমৃদ্ধ ডায়েট আপনার ত্বকে অক্সিজেন সরবরাহ উন্নত করে। ফলে আপনার ত্বককে দেখায় স্বাস্থ্যে সমৃদ্ধ আর উজ্জ্বল। প্রতিদিনের খাবারে প্রোটিনের সরবরাহ ঠিকঠাক পাওয়ার জন্য ডিম আর অল্প পরিমাণে মুরগির মাংস যোগ করুন।