লকডাউনে ঘরে বন্দি থাকার কিছু সুফলের কথা আমরা আন্দাজ করতে পেরেছিলাম। বাড়িতে থাকা, জাঙ্ক ফুড জীবন থেকে ছেঁটে ফেলা, ভালোমতো ঘুমোনো, এ সব মিলিয়ে আমাদের ত্বক মোমপালিশ, মসৃণ আর উজ্জ্বল হয়ে ওঠাটা ছিল স্রেফ সময়ের অপেক্ষা। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে দেখা গেল ব্যাপারটা পুরো উলটো ঘটছে! মুখে গাদা গাদা ব্রণ তো বেরোচ্ছেই, ত্বক খুব নিষ্প্রাণ আর বিবর্ণ দেখাচ্ছে। এমন হলে নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন, আপনি একা নন। শুধু রোদ আর দূষণ এড়িয়ে চললেই ত্বক স্বাস্থ্যোজ্জ্বল আর পরিপাটি হয়ে ওঠে না। বরং মনের ওপর চাপ বাড়লেই তার প্রভাব সরাসরি ত্বকের ওপর পড়ে।

সারাক্ষণ বাড়িতে থাকা, অতিমারীর ভয়, একটানা দীর্ঘ কাজের সময়, এ সব সাধারণ কারণেই মনের ওপর বিরাট চাপ তৈরি হয়। স্ট্রেস যে শুধু মনের ওপর প্রভাব ফেলে তাই নয়, শরীরের ওপরেও এর প্রভাব দেখা যায়। শরীরের ওপর মানসিক চাপের প্রথম লক্ষণটির প্রকাশ ঘটে চুল উঠে যাওয়া আর ব্রণ বেরোনোর মধ্যে দিয়ে। অনেকের ক্ষেত্রে ওজন বেড়ে বা কমে যেতে পারে। এ সব সমস্যা থেকে মুক্তির একমাত্র উপায় হল লকডাউনে তৈরি হওয়া স্ট্রেস ঠিকমতো সামাল দেওয়া।

 

নিজের হবি তৈরি করুন

নিজের হবি তৈরি করুন

লকডাউনে জীবনে যত ব্যস্ততাই থাক, দিনের কিছুটা সময় এমন কিছু করুন যা করতে আপনি পছন্দ করেন। সেটা হতে পারে গাছে জল দেওয়া, বা ছবি আঁকা, বা বই পড়া বা এমন কিছু, যা করলে সত্যিই আপনার ভালো লাগে। তবে এমন হবি বাছুন যা করতে কোনও ডিজিটাল যন্ত্রের দরকার হয় না।

 

ঘুম থেকে উঠেই ফোন ঘাঁটবেন না

ঘুম থেকে উঠেই ফোন ঘাঁটবেন না

সকালে ঘুম ভেঙে চোখ খুলেই ফোন দেখাটা প্রায় আমাদের অভ্যেসে পরিণত হয়েছে। এই অভ্যেস ছাড়তে হবে। দিনের শুরুতেই কোনও খারাপ খবর বা কাজের ইমেল দেখলে স্ট্রেস লেভেল হু হু করে বেড়ে যেতে পারে। মাথায় চাপ নিয়ে দিন শুরু করলে কাজের সব পরিকল্পনায় তার প্রভাব পড়বে, এমনকী খাওয়া আর ঘুমের প্যাটার্নও নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

 

ত্বক পরিচর্যার রুটিনে বদল আনুন

ত্বক পরিচর্যার রুটিনে বদল আনুন

ত্বক নিয়ে অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা করলেও কিন্তু স্ট্রেস তৈরি হয়। আপনার যদি ত্বক নিয়ে কোনও সমস্যা থাকে, তা হলে বদলে ফেলুন ত্বক পরিচর্যার রুটিন। এমন প্রডাক্ট রাখুন যা আপনার ত্বকের ধরনের সঙ্গে মানানসই। প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে ডার্মাটোলজিস্টের সঙ্গে অনলাইন কনসাল্টেশনের সাহায্য নিন।

 

নিজের যত্ন নিন

নিজের যত্ন নিন

নিজের যত্ন নিতে একগাদা খরচও হয় না, স্পায়ে যাওয়ার দরকারও পড়ে না। ভালো করে স্নান করুন, স্নানের জলে কিছুটা এসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিন, বাথরুমে সেন্টেড মোমবাতি জ্বেলে দিতে পারেন। অথবা সিম্পল কাইন্ড টু স্কিন ডি-স্ট্রেস শিট মাস্ক/ Simple Kind To Skin De-Stress Sheet Mask লাগান মুখে, তাতে শরীর আর মনের পাশাপাশি মুখও স্ট্রেসমুক্ত থাকবে।

 

ধ্যান করুন

ধ্যান করুন

ধ্যান করলে শরীর শান্ত হয়, ইন্দ্রিয়গুলোও বশে থাকে। তাই দিনে অন্তত 10 মিনিট ধ্যান করা দরকার। সকালে সাধারণ ডিপ ব্রিদিং এক্সারসাইজ করলেও সারাদিন ইতিবাচক মনোভাব ধরে রাখতে পারবেন।