সিরামে কেন ভিটামিন সি অবশ্যই থাকা দরকার

Written by Manisha DasguptaMay 17, 2022
 সিরামে কেন ভিটামিন সি অবশ্যই থাকা দরকার

ত্বকে ভিটামিন সি-এর উপকারিতা সম্পর্কে আমরা সকলেই শুনেছি, বয়সের কাঁটা উলটোদিকে ঘোরানোর এই সক্রিয় উপাদানটির গুরুত্ব সম্পর্কেও আমরা সচেতন। ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ সিরাম করতে পারে না এমন কিছু নেই! ত্বক উজ্জ্বল আর আর্দ্র করা থেকে শুরু করে হাইপারপিগমেন্টেশন আর বয়সের দাগছোপের মোকাবিলা করা পর্যন্ত এতরকম উপকার এই উপাদানটি করে যে ভেবে চমকে যেতে হয়! সম্প্রতি আমরা একটি অসাধারণ ভিটামিন সি সিরামের কথা জানতে পেরেছি, আর সে কথাই এবার আপনাদের জানাব।

 

ল্যাকমে নাইন টু ফাইভ ভিটামিন সি+ফেসিয়াল সিরাম/Lakmé 9to5 Vitamin C+ Facial Serum নিয়ে আমাদের মুগ্ধতা শেষ হওয়ার নয়! ভিটামিন সি-এর সবচেয়ে সমৃদ্ধ উৎস, সুপারফুড কাকাডু প্লামের নির্যাসে ভরপুর এই হালকা সিরামটি ত্বকে নিষ্প্রাণভাব, বয়সের দাগ, রোদজনিত ক্ষতি এবং দূষণের প্রভাব দূর করে এবং ফ্রি র‍্যাডিক্যালস হঠিয়ে দেয়। এটি অ্যান্টিঅক্সিডান্টে ভরপুর এবং একটি কমলালেবুতে যে পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে, তার চেয়ে 100 গুণ বেশি ভিটামিন সি ধারণ করে। এবং এই সিরাম সহজেই ব্যাগে রাখা যায়।! এর চেয়ে ভালো আর কী হতে পারে বলুন?

 

ভিটামিন সি সিরামের উপকারিতা বিস্তারিত জানাচ্ছি আমরা। আপনি কেন এটি ব্যবহার করবেন তা নিজেই দেখে নিন!

 

01. অ্যান্টি-এজিং হিরো

05. হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়

ভিটামিন সি একটি অ্যান্টিঅক্সিডান্ট, তাই এটি ত্বককে ফ্রি র‍্যাডিক্যালসের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। এই ফ্রি র‍্যাডিক্যালসের কারণে ত্বকের কোষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়, এবং শেষ পর্যন্ত ত্বকে বয়সের ছাপ পড়ে যায়, সূক্ষ্ম রেখা, বলিরেখা, নিষ্প্রাণভাব, ত্বক আলগা হয়ে ঝুলে পড়ার মতো বয়সের দাগ দেখা দেয়।

 

02. কোলাজেন উৎপাদন বাড়িয়ে তোলে

05. হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়

বয়সের কাঁটা থমকে দেওয়ার এই উপাদানটি কোলাজেন উৎপাদন বাড়িয়ে তোলে। কোলাজেন ত্বকের নমনীয়তা আর টানটানভাব বজায় রাখে এবং বলিরেখা, সূক্ষ্ম রেখা, ত্বকের ঢিলেভাব, ডার্ক সার্কল, ত্বকের রুক্ষতা ফুটে উঠতে দেয় না। ফলে ত্বক উজ্জ্বল হয়ে ওঠে।

 

03. পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই

05. হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়

ভিটামিন সি এমনই একটি উপাদান যা থেকে ত্বকে কোনওরকম প্রতিক্রিয়া হওয়ার নজির নেই। বিজ্ঞান প্রমাণ করেছে, এই উপাদানটি ত্বকের পক্ষে খুবই নিরাপদ। এবং নানাধরনের ত্বকের সঙ্গে এটি সহজেই মানিয়ে নিতে পারে। মাঝেমাঝে এই উপাদানটি থেকে ত্বকে জ্বালা, লালচেভাব বা শুষ্কতা দেখা দিতে পারে, কিন্তু এই উপসর্গগুলো তাঁদেরই হয় যাঁদের ত্বক স্পর্শকাতর বা অতিস্পর্শকাতর। এটি রেটিনল, এএইচএ আর এসপিএফের মতো অন্যান্য সক্রিয় উপাদানের সঙ্গেও মানিয়ে যায়, ফলে এই সব উপাদানের পারস্পরিক প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে আপনার দুশ্চিন্তা করার দরকার নেই!

 

04. প্রদাহ কমানোর গুণ

05. হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়

অ্যান্টিঅক্সিডান্ট হওয়ার সুবাদে ভিটামিন সি অ্যান্টিইনফ্লামেটরি উপাদান হিসেবেও কাজ করে। এটি ত্বক থেকে ফোলাভাব আর লালচেভাব কমায়, ক্ষতচিহ্ন সারিয়ে তোলে। পরীক্ষায় দেখা গেছে, এই উপাদানটি ইনফ্লামেটরি ডার্মাটোসিসের মতো একগুচ্ছ ত্বকের সমস্যা সারিয়ে তোলে। ফলে ত্বক হয়ে ওঠে স্বাস্থ্যবান ও উজ্জ্বল। ক্ষতচিহ্ন কমাতেও এই উপাদানটি কাজ করে।

 

05. হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়

05. হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়

ত্বকে মেলানিন অসমানভাবে জমে থাকে। ত্বকের কিছু অংশে বেশি মেলানিন থাকে, ফলে সেই সব অংশ মুখের বাকি অংশের তুলনায় কালো দেখায়। এই বিষয়টিকে বলে হাইপারপিগমেন্টেশন। ভিটামিন সি মেলানিনের উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করে হাইপারপিগমেন্টেশন কমায়। ফলে দিনে দিনে ত্বক হয়ে ওঠে মসৃণ উজ্জ্বল। 

Manisha Dasgupta

Written by

Author at BeBeautiful.
3269 views

Shop This Story

Looking for something else