চুলের জন্য যেটুকু ন্যূনতম যত্ন আপনি নিতে পারেন (শ্যাম্পু করা বাদ দিয়ে) তা হল প্রতিবার শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার মেখে চুলে বাড়তি পুষ্টি জোগানো। তবে কন্ডিশনার যে মাখছেন, তার পুরো উপকারিতাটা আপনার চুল পাচ্ছে কি? আপনার কন্ডিশনার কি ঠিকমতো কাজ করছে, আপনার চুল কি নরম আর কোমল থাকছে? আসলে কন্ডিশনারের পূর্ণ উপকারিতা পেতে হলে কন্ডিশনার মাখার সময় আপনাকে কিছু নিয়ম খেয়াল রাখতে হবে। মাথায় রাখতে হবে কী কী করা যাবে, আর কী কী করা যাবে না।

কন্ডিশনার মাখার যথাযথ নিয়ম মেনে চললে আপনার চুল একদিকে যেমন আর্দ্রতা পেয়ে কোমল আর সুন্দর থাকবে, তেমনি দূরে থাকবে চুলের রুক্ষতা, চুল ভেঙে ঝরে যাওয়ার মতো সমস্যা। এত কিছু একসঙ্গে পেতে ভালো লাগবে নিশ্চয়ই? তা হলে আর দেরি না করে পড়তে থাকুন...

 

কী করবেন - চুল ধোবেন ঠান্ডা জলে

কী করবেন - চুল ধোবেন ঠান্ডা জলে

প্রথম পর্যায়ে হালকা কুসুম গরম জল দিয়ে চুল ভেজালে চুলের কিউটিকল খুলে গিয়ে শ্যাম্পু আর কন্ডিশনার চুলের গভীরে ঢুকতে পারে, ফলে আরও ভালোভাবে কাজ করে। কিন্তু চুলের রুক্ষতা ঠেকাতে কন্ডিশনার ধোওয়ার সময়, অর্থাৎ চুল ধোওয়ার শেষ ধাপে সবসময় ঠান্ডা জলই ব্যবহার করবেন। কারণ হল, ঠান্ডা জল চুলের কিউটিকলকে আবার আঁটোসাটো করে বন্ধ করে দেয় এবং কন্ডিশনারের আর্দ্রতা চুলের গভীরেই আটকে থাকে। ফলে চুল থাকে নরম, ঝলমলে আর রুক্ষতাহীন।

 

কী করবেন - কন্ডিশনার পুরো চুলে সমানভাবে মাখুন

কী করবেন - কন্ডিশনার পুরো চুলে সমানভাবে মাখুন

শুধু যেমন তেমন করে কন্ডিশনার মেখে নিলেই চুলের আর্দ্রতা ধরে রাখতে পারবেন না; পুরো চুলে সেই কন্ডিশনার সমানভাবে মেখে নেওয়া দরকার। কন্ডিশনার লাগানোর পর চুলে হালকা মাসাজ করুন। তাতে কন্ডিশনার আরও ভালোভাবে চুলে শুষে যাবে, চুল ভালোভাবে আর্দ্রতা পাবে।

 

কী করবেন - কন্ডিশনার মাখার আগে চুল নিংড়ে বাড়তি জল ফেলে দিন

কী করবেন - কন্ডিশনার মাখার আগে চুল নিংড়ে বাড়তি জল ফেলে দিন

শ্যাম্পু ধুয়ে ফেলার পর চুল চিপে সমস্ত বাড়তি জল ফেলে দিন, তারপর কন্ডিশনার লাগান। জলসমেত ভেজা চুলে কন্ডিশনার লাগালে তা গড়িয়ে পড়ে যাবে। চুল কোনও পুষ্টি পাবে না, গোটা প্রক্রিয়াটাই অর্থহীন হয়ে যাবে।

 

কী করবেন না - তাড়াহুড়ো চলবে না

কী করবেন না - তাড়াহুড়ো চলবে না

কন্ডিশনারের পুরো সুবিধে পেতে একটু সময় হাতে রাখতেই হবে। কন্ডিশনার লাগানোর পর অন্তত চার-পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করুন, তারপর চুল ধোবেন। এতে কন্ডিশনারের উপাদানগুলি চুলে শুষে যায় এবং সর্বোচ্চ আর্দ্রতা আর পুষ্টি জোগায়।

 

কী করবেন না - স্ক্যাল্পে কন্ডিশনার লাগাবেন না

কী করবেন না - স্ক্যাল্পে কন্ডিশনার লাগাবেন না

মনে রাখবেন কন্ডিশনার একমাত্র চুলেই লাগাতে হয়, চুলের গোড়ায় নয়। স্ক্যাল্পে লাগালে ভারী কন্ডিশনারের অবশেষ চুলের গোড়ায় জমে থাকতে পারে, ফলে চুল তেলতেলে ন্যাতানো দেখায়। তা ছাড়া চুলের গোড়ায় কন্ডিশনার জমে থাকলে মাথা চুলকোনোর পাশাপাশি ফলিকলের মুখ বন্ধ হয়ে গিয়ে নানা বিপত্তি দেখা দিতে পারে।

 

কী করবেন না - একগাদা কন্ডিশনার মাখবেন না

কী করবেন না - একগাদা কন্ডিশনার মাখবেন না

কতটা কন্ডিশনার দরকার তা নির্ভর করে আপনার চুলের ধরন, চুলের দৈর্ঘ্য আর ঘনত্বের ওপর। সাধারণভাবে বললে, আপনার যদি মাঝারি দৈর্ঘ্যের ঘন চুল হয় তা হলে একটাকার আকারের কন্ডিশনারই যথেষ্ট। চুল পাতলা হলে কন্ডিশনার আরও কম লাগবে। চুলে কন্ডিশনার লাগানোর পর মোটা দাঁড়ার চিরুনি দিয়ে চুলটা আঁচড়ে নিন যাতে প্রতিটি চুলে কন্ডিশনারের প্রলেপ লেগে যায়।