ত্বক তরুণ আর টানটান রাখতে চান অথচ ইনজেকশনের মতো পদ্ধতি অবলম্বন করার ইচ্ছে নেই? ইন্টারনেটে তার জন্য হাজারো পদ্ধতি খুঁজে বেড়ান? তা হলে এ লেখা আপনারই জন্য। মুখ লেড মাস্ক দিয়ে ঢেকে দেওয়াই হোক, বা হিমশীতল কাচের গোলক দিয়ে মুখ মাসাজ করাই হোক, ত্বক পরিচর্যার জগতে নানারকম স্কিনকেয়ার টুল তাদের নিজেদের একটা জায়গা করে নিয়েছে, আর যা পরিস্থিতি তাতে খুব তাড়াতাড়ি তাদের অবস্থানের পরিবর্তন হবে বলেও মনে হচ্ছে না। ত্বক টানটান, তরুণ আর সতেজ রাখার এমনই পাঁচটি হাতিয়ার হাজির করলাম আমরা, যা থেকে ত্বকের কোনও ঝুঁকি নেই।

 

জেমস্টোন রোলার

জেমস্টোন রোলার

ফোটো সৌজন্য: @lyamariella

 

হাতে ব্যবহার করার এই টুলটি তৈরি হয় জেড, রোজ কোয়ার্টজ, অ্যামেথিস্টের মতো দামি পাথর দিয়ে। ত্বকের একাধিক উপকার করে এই রোলার। ডার্ক সার্কল, লালচেভাব, কালো দাগছোপ হালকা করে দেওয়া থেকে শুরু করে স্কিনকেয়ার প্রডাক্ট ত্বকে ভালোভাবে শোষিত হতে সাহায্য করা, ত্বকের রক্ত সংবহন উন্নত করা, ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা উন্নত করে ত্বক টানটান রাখা, বলিরেখা কমানোর মতো নানা উপকার করে জেমস্টোন রোলার। জেমস্টোন দিয়ে তৈরি এ সব মাসাজারের এমন গুণ রয়েছে যা নেগেটিভ এনার্জি তাড়ায়, নিজেকে ভালোবাসতে শেখায়, মনে শান্তি আনে। কোন পাথরের রোলার আপনি বেছে নেবেন, তার ওপরেই নির্ভর করে এ সব গুণ।

 

আইস গ্লোব

আইস গ্লোব

ফোটো সৌজন্য: @glo.beautyandbeyond

 

নিখুঁত গোলাকার বরফের গোলকের মতো দেখতে এই বল ত্বক সঞ্জীবিত করে তোলে। রোলার যেভাবে কাজ করে, সেই একই পদ্ধতিতে আইস গ্লোবও ত্বকের উপকার করে। মুখের ফোলাভাব কমানো, ত্বকে অক্সিজেন পৌঁছে দেওয়া, সাইনাসের ব্যথা কমানো, রোমছিদ্রের আকার কমানো, লসিকাগ্রন্থি পরিষ্কার রাখা এবং মুখে বাড়তি উজ্জ্বলতা জোগানোর পাশাপাশি এই আইস গ্লোব খুবই স্নিগ্ধ! সেলিব্রিটিদেরও পছন্দের এই টুলটি সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর ব্যবহার করুন।

 

গুয়া শা

গুয়া শা

ফোটো সৌজন্য: @mahimaa_shukla

 

রোলারের ব্যবহার রয়েছে এমন টিকটক ভিডিও যদি দেখে থাকেন, তা হলে তার কাউন্টারপার্ট গুয়া শা-র সঙ্গেও নিশ্চয়ই আপনার আলাপ হয়েছে। এটিও জেমস্টোন দিয়ে তৈরি, বস্তুত রোলার যে পাথর দিয়ে তৈরি হয় গুয়া শা-ও সেই একই পাথরে তৈরি এবং মুখ স্কাল্পট করতে এর জুড়ি নেই। চ্যাপ্টা দেখতে এই পাথর সিস্টিক অ্যাকনে সারিয়ে তোলে, ব্রণর দাগ কমায়, লিম্ফ বা লসিকা গ্রন্থি পরিষ্কার রাখে, বলিরেখা আর সূক্ষ্ম রেখা কমায়, মুখ থেকে টক্সিন কমায় এবং পেশির ব্যথা দূর করে। ত্বকের জ্বালা বা টান ধরা আটকাতে গুয়া শা ব্যবহারের সময় মুখে সিরাম, তেল বা ময়শ্চারাইজার মেখে নেবেন।

 

লেড মাস্ক

লেড মাস্ক

ফোটো সৌজন্য: @kamilamatthews

 

স্কিনকেয়ারের ভবিষ্যৎ লুকিয়ে রয়েছে লেড মাস্কের মধ্যে। লেড মাস্ক ত্বকের গভীরে পৌঁছে গিয়ে অণু পরমাণুর স্তর থেকে পরিবর্তন আনতে সাহায্য করে। ত্বকের বিশেষ সমস্যার মোকাবিলা করতে আলাদা আলাদা আলোর ওয়েভলেংথের বর্ণালী বিচ্ছুরিত হয় লেড মাস্ক থেকে। যেমন, নীল আলো ব্যাকটেরিয়া মেরে ব্রণ কমাতে সাহায্য করে। লাল আলো ত্বকে রক্ত সংবহন বাড়ায় এবং কোলাজেনের পরিমাণ বাড়িয়ে বলিরেখা, সূক্ষ্ম রেখা এবং বয়সের অন্যান্য দাগ প্রতিরোধ করে। আর এ সব সুবিধে পেতে ডার্মাটলজিস্টের কাছে যাওয়ার দরকার নেই। দারুণ না?

 

কাঁসাদণ্ড

কাঁসাদণ্ড

ফোটো সৌজন্য: @paavaniayurveda

 

প্রাচীন আয়ুর্বেদিক যন্ত্র কাঁসাদণ্ড প্রায় 5,000 বছর ধরে প্রচলিত (রোলার আর গুয়া শা-র আগে)। এটি একটি হস্তচালিত যন্ত্র যা ত্বক পুনরুজ্জীবিত করে তোলে, ত্বকের টানটানভাব বাড়ায়, লসিকা গ্রন্থি থেকে টক্সিন কমায়, পেশি সতেজ করে এবং চোখের চারপাশের ফোলাভাব কমায়। কাঠ আর কাঁসা ধাতু দিয়ে তৈরি এই দণ্ডটি ত্বকের পিএইচ ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে, যা বয়সের দাগছোপ মোকাবিলায় উপযোগী। ফেসিয়াল সিরাম বা তেলের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করুন আর পেয়ে যান ঝলমলে উজ্জ্বল ত্বক।