বলুন তো, কোন ভিটামিন শরীরের সবচেয়ে উপকারী বন্ধু? জানি উত্তরটা রয়েছে আপনাদের কাছে! সবচেয়ে উপকারী ভিটামিনের প্রসঙ্গ উঠলে 'সি'-এর সঙ্গে টেক্কা দেওয়া কঠিন! অ্যান্টিঅক্সিডান্টে ভরপুর ভিটামিন সি শুধু শরীরের পক্ষেই উপকারী নয়, আপনার ত্বকেরও সবচেয়ে কাছের বন্ধু! সিরাম, ময়শ্চারাইজার আর ক্রিম আকারে ভিটামিন সি মাখলে তা অসমান ত্বকের রং, ত্বকের নিষ্প্রাণভাব, সূক্ষ্মরেখা, অমসৃণ খসখসেভাব, ব্রণর দাগ, এ সব কিছু থেকেই মুক্তি দিতে পারে।

কাজেই আপনার দৈনন্দিন ত্বক পরিচর্যার রুটিনে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ প্রডাক্ট যোগ করা অত্যন্ত জরুরি। তবে তার জন্য বাড়তি খাটনি হবে না আপনার। সত্যি বলতে ভিটামিন সি আপনার ত্বকের এতরকম সমস্যার খেয়াল রাখবে যে আলাদা করে বিস্তারিত স্কিনকেয়ার রুটিন মেনে চলার দরকারই পড়বে না! দেখে নিন কী কী কারণে নিজের রূপচর্চার উপাদানের তালিকায় একদম প্রথমে রাখবেন ভিটামিন সি।

শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডান্ট

 

শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডান্ট

শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডান্ট

ভিটামিন সি-এর অ্যান্টিঅক্সিডান্ট সংক্রান্ত উপকারিতার কথা খুবই সুবিদিত এবং ত্বক বিশেষজ্ঞেরা মনে করেন যে কোনও বয়সের ত্বক সুস্থ আর সুন্দর রাখতে ভিটামিন সি একটা বড় হাতিয়ার। ভিটামিন সি-এর পুষ্টিগুণ কোষস্তর থেকে ত্বকের ডিএনএ নতুন করে তৈরি করতে পারে, ফলে কোলাজেন উৎপাদন বাড়ে এবং অতিবেগুনি রশ্মিজনিত ত্বকের ক্ষতিও সেরে যায়। একাধিক ত্বক বিশেষজ্ঞ ত্বক পরিচর্যার সম্পূর্ণ সুফল পেতে ভিটামিন সি সিরাম মাখার পরামর্শ দেন। এটি ময়শ্চারাইজারের চেয়ে হালকা আর সহজেই ত্বকে শুষে যায়। নতুন ল্যাকমে নাইন টু ফাইভ ভিটামিন সি+ ফেসিয়াল সিরাম/ Lakmé 9to5 Vitamin C+ Facial Serum-এ আছে কাকাডু প্লামের নির্যাস। এতে কমলালেবুর চেয়ে 100 গুণ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে, ফলে ত্বক সুস্থ উজ্জ্বল আর সুন্দর রাখতে যা যা গুণ আর অ্যান্টিঅক্সিডান্ট দরকার, তার সবটাই পেয়ে যাবেন আপনি।

 

রোদের ক্ষতি সারিয়ে তোলে

রোদের ক্ষতি সারিয়ে তোলে

একটানা দীর্ঘক্ষণ রোদে থাকলে তার প্রভাব পড়ে ত্বকে; সানস্পট, রুক্ষভাব, সূক্ষ্মরেখা, কিছু ক্ষেত্রে ত্বকে শুকনো আঁশ ওঠার মতো সমস্যা দেখা দেয়। ভিটামিন সি লাগালে ত্বক অতিবেগুনি রশ্মিজনিত ক্ষতির হাত থেকে রেহাই পায়, ক্ষতিগ্রস্ত কোষগুলোও সজীব হয়ে ওঠে। তাই দিনের বেলায় সানস্ক্রিনের সঙ্গে ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ একটি ক্রিমও মাখা দরকার। ল্যাকমে নাইন টু ফাইভ ভিটামিন সি+ ডে ক্রিম/ Lakmé 9to5 Vitamin C+ Day Creme মেখে দেখুন। এটি হালকা এবং এতে ভিটামিন সি-এর অ্যাক্টিভ কনসেনট্রেশন রয়েছে যা ত্বকে অ্যান্টিঅক্সিডান্টের উপকারিতা জোগায়, ত্বক উজ্জ্বল করে তোলে। ত্বকের কোলাজেন উৎপাদনও বাড়িয়ে তোলে এই ক্রিমটি।

 

ত্বক রাখে নরম আর মসৃণ

ত্বক রাখে নরম আর মসৃণ

আমাদের ত্বক খুব দ্রুত পিপাসার্ত হয়ে পড়ে, ফলে তার প্রচুর আর্দ্রতা দরকার। যথেষ্ট পরিমাণে জল খেলে সেই জল ত্বক সহ শরীরের অন্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গে সমানভাবে ভাগ হয়ে যায়। সেজন্য ত্বকে পুষ্টি সঞ্চার করতে বাইরে থেকেও আর্দ্রতা জোগানো জরুরি। ভিটামিন সি জল ধরে রাখতে পারে এবং ত্বককে খুব তেলতেলে বা খুব শুষ্ক হওয়া থেকে বাঁচায়। ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ ক্রিম বা ময়শ্চারাইজার লাগালে ত্বক দীর্ঘক্ষণ আর্দ্র থাকবে আর সেই সঙ্গে থাকবে কোমল আর মসৃণ।

 

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তোলে

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তোলে

ত্বক যখন অতিরিক্ত পরিমাণে মেলানিন (রঞ্জক দ্রব্য যা ত্বকের রঙের জন্য দায়ী) উৎপাদন করতে শুরু করে, তখন ত্বকে কালো দাগ পড়ে, হাইপারপিগমেন্টেশন দেখা দেয়। এমনিতে ব্যাপারটা ক্ষতিকর নয়, তবে সকলেই চান দাগহীন মসৃণ উজ্জ্বল ত্বক। নিয়মিত ভিটামিন সি মাখলে, বিশেষ করে রাতে মাখলে ট্রায়োসিনেস (একটি উৎসেচক যা মেলানিন উৎপাদনের অন্যতম কারণ) উৎপাদন কমে যেতে পারে। ল্যাকমে নাইন টু ফাইভ ভিটামিন সি+ নাইট ক্রিম/ Lakmé 9to5 Vitamin C+ Night Creme হল ভিটামিন সি-এর ভাণ্ডার! এই ক্রিমে ইথাইল অ্যাসকরবিক অ্যাসিড আকারে সক্রিয় ভিটামিন সি রয়েছে এবং তার সঙ্গেই রয়েছে শিয়া বাটার ও মুরুমুরু বাটার। আপনি যখন রাতে ঘুমোন, সেই সময় এই ক্রিম আপনার ত্বকের সমস্ত ক্ষতি পূরণ করে ত্বকে পুষ্টি জোগায় এবং হাইপারপিগমেন্টেশন কমিয়ে দেয়।

 

ত্বকে জ্বালাভাব হয় না

ত্বকে জ্বালাভাব হয় না


আপনার রোজকার স্কিনকেয়ার রুটিনে অনায়াসেই যোগ করতে পারেন ভিটামিন সি, কারণ এই উপাদানটি কোমল এবং স্পর্শকাতর ত্বকসহ সব ধরনের ত্বকের উপযোগী। ফলে ত্বকে জ্বালা করবে কিনা ভেবে ভয় পাবেন না, ঠিকমতো ব্যবহার করলে ত্বক জ্বালা করার কোনও কারণ নেই। বেশিরভাগ উপাদানের সঙ্গেই মিশে যায় ভিটামিন সি; সত্যি বলতে, ভিটামিন সি কিছু প্রডাক্টের কার্যকারিতা বাড়িয়ে তোলে। ভিটামিন ই, ফেরুলিক অ্যাসিড সহ নানা উপাদানের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন ভিটামিন সি।

কিছু প্রশ্ন:


1) ত্বকে ভিটামিন সি সিরামের উপকারিতা কী?


সিরামে শক্তিশালী সক্রিয় উপাদান থাকে এবং যে কোনও ত্বক পরিচর্যার সামগ্রীর চেয়ে তা অনেক বেশি কার্যকর। স্কিনকেয়ার রুটিনে ভিটামিন সি সিরাম যোগ করলে কোলাজেন তৈরি বৃদ্ধি পাবে, হাইপারপিগমেন্টেশন কমবে, ত্বকের রং উজ্জ্বল হবে, রোদের ক্ষতির হাত থেকে ত্বক সুরক্ষিত থাকবে এবং ত্বকে কোনও ক্ষত থাকলে তা চটপট সেরে যাবে।

2) মুখে ভিটামিন সি সিরাম কখন মাখব?


দিনে একবার কি দু'বার মুখে ভিটামিন সি সিরাম লাগাতে পারেন। মুখ পরিষ্কার করে টোনার লাগানোর পর এবং ময়শ্চারাইজার মাখার আগে সিরাম লাগিয়ে নিন। দিনের বেলায় সানস্ক্রিন মাখতে ভুলবেন না, কারণ রোদের সংস্পর্শে এসে ভিটামিন সি-এর কার্যকারিতা কমে যেতে পারে।

3) ভিটামিন সি মাখলে কি কালো দাগ কমে?


ত্বকের ওপরে ভিটামিন সি লাগালে তা মেলানিন উৎপাদনে বাধা দেয়। এর ফলে ডার্ক স্পট, হাইপারপিগমেন্টেশনের দাগ হালকা হয়ে যায় এবং আ