আপনার পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ত্বক চাই, অথচ খরচ করার মতো পর্যাপ্ত সময় বা টাকাপয়সা নেই? আমরা আপনার কথা ভেবেই নিয়ে এসেছি ৫টি ফেস প্যাক, যা নিজেই বানিয়ে নিতে পারবেন আর আপনার ত্বকে আসবে ঝলমলে দীপ্তি|
বেসন আর নিম
 

বেসন আর নিম

পুরোনো চেনা উপাদান, কিন্তু অত্যন্ত নির্ভরযোগ্য| ত্বকের ক্ষেত্রে বেসন জাদু দেখায়| এটি ব্রণ কমায়, বিবর্ণ আর শুষ্ক ত্বকে সজীবতা আনে... হাজার কাজ করে দেখায়! এটির সঙ্গে যুক্ত হয় নিমের জীবাণু-প্রতিরোধকারী গুণ যুক্ত হলে ব্রণ নির্মূল হওয়া ছাড়া আর গত্যন্তর থাকে না| সাদা মুখের ফুসকুড়ি বা ফোলা ভাব কিছু থাকলে সেগুলিও চলে যাবে|

মাস্ক বানানোর পদ্ধতি

এক টেবিলচামচ করে শুকনো নিমপাতার গুঁড়ো আর বেসন নিন| তাতে ভালো করে এক টেবিলচামচ টক দই দিয়ে ফেটান| ঘন লেই তৈরি হলে সেটি মুখে লাগিয়ে ১০-১৫ মিনিট রেখে দিন| তারপর জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন|

মধু আর দারচিনি

ভাবতে হয়ত অসুবিধে হচ্ছে যে মধুর মতো সুস্বাদু বস্তু আবার ত্বকের পক্ষেও উপকারী! কিন্তু ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করার জন্য মধু অত্যন্ত নির্ভরযোগ্য| মধু আর দারচিনি একসঙ্গে কাজ করে মুখের ত্বকের ছিদ্রে বাসা বেঁধে থাকা যে সব ব্যাকটেরিয়া সেই ছিদ্রগুলিকে বিষিয়ে ফুলিয়ে রাখে, তাদের মেরে ফেলে| ফলে ত্বকের লালচে ভাব আর ব্রণ কমে যায়|

মাস্ক বানানোর পদ্ধতি

দু’ টেবিলচামচ মধুর সঙ্গে এক চাচামচ দারচিনি বাটা মিশিয়ে লেই তৈরি করুন| এটি দাগধরা জায়গায় বা ক্ষতমুখগুলিতে বা ব্রণর উপরে সরাসরি লাগান| চাইলে পুরো মুখেও লাগাতে পারেন| ৩০ মিনিট অপেক্ষা করে ঈষদুষ্ণ জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন|

দই আর কলা
 

দই আর কলা

কে জানত যে দই আর কলা, আমাদের প্রাতরাশের প্রিয় জিনিসগুলি আমাদের ত্বকের প্রয়োজনেও ব্যবহার করা যাবে? ল্যাকটিক অ্যাসিড আছে বলে দই ত্বকের মরা কোষ তুলে ফেলার পক্ষে আদর্শ উপাদান| মরা কোষগুলি ত্বকের উপরে গলিয়ে ফেলে এটি ত্বকের ফাটল, কুঞ্চন আর  বলিরেখা কমিয়ে দেয়| কলার সঙ্গে মিশে এটি ত্বকের পক্ষে অত্যন্ত উপকারী মাস্ক তৈরি করে, কারণ কলায় আছে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টস|

মাস্ক বানানোর পদ্ধতি

একটি পাকা কলা চটকে নিয়ে তাতে এক টেবিলচামচ দই মেশান| তারপর এক চাচামচ মধু আর এক চাচামচ পাতিলেবুর রস মিশিয়ে দিন| ভালো করে নেড়ে একটি সুষম মিশ্রণ তৈরি করুন| ১৫ মিনিট মুখে এই মিশ্রণটি লাগিয়ে রেখে জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন|

বেকিং সোডা

এই উপাদানটি দেখেই আঁতকে উঠলেন না কি? কিন্তু বিশ্বাস করুন, বেকিং সোডা আপনার ত্বককে করে পরিষ্কার আর মসৃণ | ত্বকের ছিদ্রের গভীরে জমে থাকা ময়লা দূর করে এটি ছিদ্রগুলিকে মুক্ত করে দেয় |

মাস্ক বানানোর পদ্ধতি

এক টেবিলচামচ বেকিং সোডার সঙ্গে এক টেবিলচামচ মধু মেশান| তাতে আধ টেবিলচামচ পাতিলেবুর রস দিন| এবার ভালো করে মুখ ধুয়ে নিয়ে তারপর সব উপাদান মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে ২০-৩০ মিনিট রেখে দিন| তার পর হালকা গরম জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন| খেয়াল রাখবেন, খুব সংবেদনশীল  ত্বকের পক্ষে এই মাস্ক উপযোগী না-ও হতে পারে, কারণ বেকিং সোডার বিক্রিয়া-ক্ষমতা যথেষ্ট তীব্র|

হলুদ
 

হলুদ

এই শক্তিশালী মশলাটি গন্ধে আর নিজস্ব অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের গুণে ভরপুর| এটির মধ্যে আছে ফোলাভাব কমিয়ে দেওয়ার গুণও, ফলে ত্বকে আসে স্থিতি আর প্রশান্তি| আমরা পাই ত্বকে স্বাস্থ্যের উজ্জ্বলতা, যা আমাদের সকলের স্বপ্ন |

মাস্ক বানানোর পদ্ধতি

এক চাচামচ হলুদ, এক চাচামচ দই আর এক চাচামচ মধু ভালো করে ফেটিয়ে থকথকে করে নিন| তারপর এই মিশ্রণ মুখে মেখে ২০-৩০ মিনিট অপেক্ষা করে শুকিয়ে গেলে পরিষ্কার, নরম ভিজে কাপড় দিয়ে মুখ ভালো করে মুছে ফেলুন|