ভেজা কাঁথা, অগোছালো এলোমেলো ঘর, ডাঁই হয়ে থাকা কাপড়চোপড় আর একটা ছোট্ট মানুষের বাচ্চা যে বেঁচে থাকার জন্য একান্তভাবেই আপনার ওপর নির্ভরশীল! সন্তান জন্ম দেওয়ার পর প্রথম কয়েকবছর মাতৃত্বের চেহারাটা এমনই! সন্তানের জন্মের সঙ্গেই নতুন মায়ের জীবনে আসে পরিবর্তন আর অনেকগুলো বাড়তি দায়িত্ব, আর সেই সঙ্গেই দেখা দেয় নিষ্প্রাণ চুল আর চুল উঠে যাওয়ার সমস্যা। সন্তানের জন্মের পর চুল উঠে যাওয়াটা খুব সাধারণ সমস্যা, কিন্তু তা যত্নের সঙ্গে মোকাবিলা করা দরকার। তাই যাঁরা সদ্য মা হয়েছেন, তাঁদের জন্য রইল প্রসবোত্তর চুলের যত্ন নেওয়ার একটি সহজ অথচ কার্যকরী রুটিন। মেনে চলুন, অবশ্যই সুফল পাবেন!

 

ধাপ#1: চুল কেটে ফেলুন

ধাপ#1: চুল কেটে ফেলুন

নিজের জন্য একটু সময় বের করতে পারলে ওই সময়টায় পার্লারে গিয়ে চুলটা কেটে আসুন। তাতে ডগা ফাটা চুলের হাত থেকে রেহাই পাবেন, চু্ল ঘন দেখাবে, ভল্যুম আসবে। সবচেয়ে বড় কথা, চুল সহজে ম্যানেজ করতে পারবেন, দেখভালের জন্য বেশি সময় দিতে হবে না!

 

ধাপ #2: চুল পরিষ্কার রাখুন, কিন্তু অতিরিক্ত শ্যাম্পু করবেন না

ধাপ #2: চুল পরিষ্কার রাখুন, কিন্তু অতিরিক্ত শ্যাম্পু করবেন না

সন্তানের জন্মের পর চুলের ফলিকল দুর্বল হয়ে যায়। তাই মা হওয়ার পর প্রথম বছরে অতিরিক্ত চুল উঠতে থাকে। চুলে বারবার শ্যাম্পু করলে এই সমস্যা আরও বাড়ে। তাই সপ্তাহে দু'বারের বেশি শ্যাম্পু করবেন না। শ্যাম্পুর জন্য বেছে নিন ট্রেসমে থিক অ্যান্ড ফুল শ্যাম্পু/ TRESemmé Thick & Full Shampoo বায়োটিন আর হুইট প্রোটিনে সমৃদ্ধ এই শ্যাম্পু চুল ভাঙাঝরা কমায়, এবং চুল ঘন দেখায়। পাশাপাশি এই শ্যাম্পু চুলের গোড়া মজবুত করে তোলে, ফলে চুল ভল্যুম পায় আর সেই সঙ্গে পায় বিশেষ যত্ন যা এই সময়ে দরকার।

 

ধাপ#3: চুল মজবুত করে এমন হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করুন

ধাপ#3: চুল মজবুত করে এমন হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করুন

সদ্য মা হওয়ার পর আপনার চুলের দরকার এমন হেয়ার মাস্ক যা চুলের গোড়া মজবুত করে তুলতে পারে। এই সময়ে বাড়িতে ঘরোয়া মাস্ক তৈরি করা কার্যত অসম্ভব, তাই আমরা আরও ভালো সমাধান হাজির করেছি - সপ্তাহে একদিন চুলে লাগান ডাভ হেলদি রিচুয়াল ফর স্ট্রেংদেনিং হেয়ার মাস্ক/ Dove Healthy Ritual For Strengthening Hair Mask ওট মিল্ক আর মধুর নির্যাসে ভরা এই মাস্ক আপনার চুল করে তোলে মজবুত, রুক্ষতা কমায় আর চুল হয়ে ওঠে মসৃণ। পরিমাণমতো মাস্ক নিয়ে চুলের দৈর্ঘ্য বরাবর লাগিয়ে নিন (চুলের গোড়ায় লাগাবেন না), তারপর তিন থেকে পাঁচ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এই মাস্ক চুলে পুষ্টি জোগাবে, চুলের ক্ষতি মেরামত করে ফিরিয়ে আনবে মজবুতভাব।

 

ধাপ#4: বাদ দেবেন না কন্ডিশনার

ধাপ#4: বাদ দেবেন না কন্ডিশনার

এই সময়ে আপনার চুলের দরকার পর্যাপ্ত যত্ন আর পুষ্টি, তাই সংগ্রহে রাখুন ট্রেসমে থিক অ্যান্ড ফুল কন্ডিশনার/ TRESemmé Thick & Full Conditioner । হুইট প্রোটিন আর বায়োটিন যুক্ত ফর্মুলার সুবাদে এই কন্ডিশনার আপনার চুল করে তোলে ঘন আর ভরন্ত। শ্যাম্পু করার পর চুলের দৈর্ঘ্য বরাবর কন্ডিশনার লাগান, বিশেষ করে চুলের প্রান্তে ভালো করে লাগাবেন। এরপর দু' থেকে তিন মিনিট রেখে চুল ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন।

 

ধাপ#5: স্মার্ট স্টাইল করুন

ধাপ#5: স্মার্ট স্টাইল করুন

চুলের যত্ন নেওয়ার জন্য ওপরে বলা সব কিছু করার পর আর একটা কৌশল প্রয়োগ করতে হবে যাতে চুলের সমস্যার কথা কেউ বুঝতে না পারে। সেটা হল হেয়ারস্টাইলটাই পালটে দেওয়া। হেয়ারস্টাইল বদলালে ন্যাতানো ফ্ল্যাট চুলও ঘন আর ভরাট দেখায়। চুল পাতলা হয়ে গেলে সিঁথির অবস্থান পালটে ফেলুন। চুলে ভল্যুম আনতে ডাবল পনিটেল করতে পারেন, এতেও চুল ঘন দেখাবে।