ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের সঙ্গে তেলচকচকে চুলের একটা স্পষ্ট তফাত রয়েছে। ঝলমলে চুল পাওয়ার জন্য আমরা যতটা চেষ্টা করি, তেলচকচকে চুলের খপ্পর থেকে ততটাই দূরে থাকি!

ঘুম ভেঙে উঠে যদি দেখেন মাথা আর চুল তেল চুপচুপে হয়ে রয়েছে, আর শ্যাম্পু করার মতো হাতে একটুও বাড়তি সময় নেই, তা হলে যে কী মুশকিলে পড়তে হয় ভুক্তভোগী মাত্রেই জানেন! ঝটপট চুলের তেলাভাব ঢাকার জন্য তখন নানারকম ফন্দিফিকির করতে হয়। আর সে সময় মনের অবস্থা কী হয় তাও নিশ্চয়ই আঁচ করতে পারছেন?

এরকম পরিস্থিতিতে যাতে আর পড়তে না হয়, তার জন্য আমরা নিয়ে এসেছি কিছু দারুণ হেয়ার কেয়ার টিপস। যে সব মেয়ে সারাক্ষণ তেল চুপচুপে স্ক্যাল্প আর চুলের বিরুদ্ধে লড়াই করে যান, তাঁদের কাজে লাগবে এ সব টিপস।

খুব বেশি তেলতেলে স্ক্যাল্প হলে এই 5টি ধাপের ওপর জোর দিন।

 

#01: শ্যাম্পু করুন যত্ন নিয়ে

#01: শ্যাম্পু করুন যত্ন নিয়ে

শ্যাম্পু কীভাবে করতে হবে সে ব্যাপারে কারোকে আর শেখানোর দরকার নেই! সেই ছোট্টবেলা থেকে শ্যাম্পু করে আসছি আমরা সবাই! কিন্তু জানেন কি, শ্যাম্পু করারও কিছু নিয়ম রয়েছে?

কে বলতে পারে, হয়তো এতদিন আপনি পুরো ভুলভাবে শ্যাম্পু করেছেন? প্রথমত, শ্যাম্পু লাগাবেন শুধু চুলের গোড়ায় আর স্ক্যাল্পে। চুলের দৈর্ঘ্য বরাবর বা চুলের ডগায় শ্যাম্পু লাগানোর দরকার নেই। স্ক্যাল্পের বাড়তি তেলাভাব কাটাতে চাইলে ঠিকঠাক শ্যাম্পু করাটা খুব দরকার।

দ্বিতীয়ত, শ্যাম্পু করার সময় নখ ব্যবহার করবেন না। খুব জোরে জোরে মাথাও ঘষবেন না। এতে স্ক্যাল্পে প্রদাহ হয়ে আরও তেল বেরোতে পারে।

 

#02: হিট স্টাইলিং টুলের ব্যবহার সীমিত রাখুন

#02: হিট স্টাইলিং টুলের ব্যবহার সীমিত রাখুন

স্ট্রেটনার আর আয়রনের ব্যবহারে চুল দারুণ সুন্দর দেখায় ঠিকই, কিন্তু এ সব জিনিস আদৌ চুলের বন্ধু নয়। এমনকী, আপনার চুল আর স্ক্যাল্প অতিরিক্ত তেলতেলে হয়ে যাওয়ার পেছনেও হিট স্টাইলিং টুলের ভূমিকা আছে।

ফলে বেশিরভাগ দিনেই চুলের স্বাভাবিক টেক্সচার ধরে রাখুন, স্বাভাবিক খোলা হাওয়ায় চুল শুকোন।

খুব প্রয়োজন হলে তবেই ব্লো ড্রায়ার বা স্ট্রেটনার ব্যবহার করবেন।

 

#03: চিরুনি ও হেয়ার ব্রাশ নিয়মিত পরিষ্কার রাখুন

#03: চিরুনি ও হেয়ার ব্রাশ নিয়মিত পরিষ্কার রাখুন

জানেন কি, আপনার মেকআপ ব্রাশের যতটা যত্ন প্রয়োজন, আপনার চিরুনি আর হেয়ার ব্রাশেরও ঠিক ততটাই দেখভাল দরকার। তাই যেমন মাঝেমাঝে মেকআপ ব্রাশ পরিষ্কার করেন, তেমনি চিরুনি আর হেয়ার ব্রাশও পরিষ্কার করে রাখবেন।

চিরুনি আর ব্রাশের গায়ে লেগে থাকা চুল রোজ পরিষ্কার করে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত একদিন কোমল সাবান দিয়ে ব্রাশ আর চিরুনি ধুয়ে ফেলুন। তাতে সমস্ত জীবাণু, ব্যাকটেরিয়া, জমে থাকা তেলময়লা আর প্রডাক্টের অবশেষ ধুয়ে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

নিয়মিত চিরুনি পরিষ্কার না করলে তার গায়ে লেগে থাকা তেলময়লা ফের আপনার চুলেই লেগে যাবে, স্ক্যাল্পও আরও তেলতেলে লাগবে।

 

#04: তেলনিরোধী প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করুন

#04: তেলনিরোধী প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করুন

ক্ল্যারিফায়িং শ্যাম্পু স্ক্যাল্প থেকে তেল ধুয়ে চুল ফুরফুরে রাখে। কিন্তু শুধু সেটুকুই যথেষ্ট নয়। শ্যাম্পু তো করবেনই, পাশাপাশি অয়েল ফাইটিং প্রাকৃতিক উপাদান দিয়েও চুলের যত্ন নিন।

সেরকমই একটি উপাদান হল অ্যালো ভেরা। চুল আর স্ক্যাল্পের বাড়তি তেলাভাব রুখে চুলে পুষ্টি জোগায় অ্যালো ভেরা, পাশাপাশি চুল কোমল রাখে।

অ্যালো ভেরা পাতা কেটে টাটকা জেল বের করে নিন, সেই জেল ক্রিমের মতো করে স্ক্যাল্পে ঘষুন। শ্যাম্পুর পর পোস্ট-ওয়াশ ট্রিটমেন্টের মতো করে এটি ব্যবহার করতে পারেন। অ্যালো স্ক্যাল্পের তেলাভাব কাটায়, প্রডাক্টের অবশেষ পরিষ্কার করে দেয় আর সেই সঙ্গে স্ক্যাল্প স্নিগ্ধ আর শীতল রাখে।

 

#05: চুলের পরিচর্যা করুন সযত্নে

#05: চুলের পরিচর্যা করুন সযত্নে

চুল নিয়ে বেশি টানাটানি করলে তা দুর্বল হয়ে যায়, ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাও বাড়ে। শুধু তাই নয়, তাতে স্ক্যাল্পের তেলতেলেভাবও বেড়ে যায়।

চুল শ্যাম্পু করার সময়, আঁচড়ানোর সময়, স্টাইলিং করার সময়, এমনকী মাথা চুলকোতে হলেও বেশি জোরে ঘষবেন না।

রুক্ষভাবে চুল আঁচড়ালে আপনার স্ক্যাল্পে প্রদাহ শুরু হবে, যার ফলে স্ক্যাল্পে বেশি করে সেবাম উৎপাদন শুরু হতে পারে। এতে চুল খুব তেলতেলে হয়ে যাবে। তাই চুলের পরিচর্যা করুন কোমল হাতে, যত্ন নিয়ে।