অনেকদিন ধরে চুল কাটছি কাটব করতে করতে শেষ পর্যন্ত চুলটা কাটা হল, সঙ্গে বাড়তি স্টাইল হিসেবে কপালের ওপর পড়ে রইল কিছু ঝুরো চুল, চলতি ভাষায় যাকে বলে ব্যাংস। তারপরে তো কিছুদিন সেই ব্যাংসের প্রেমে মোহিত হয়ে থাকা, নিজেকে বারবার দেখে নেওয়া আয়নায়, আর আশ মিটিয়ে সেলফি তোলা! কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই সেই ব্যাংস ঠিকঠাক মেনটেন করা এত কঠিন হয়ে পড়ে যে নিজেরই আর সহ্য হয় না! মনে হয় কতদিনে ফের বেড়ে উঠবে কপালের ওপরে সেঁটে থাকা ছোট চুল! অন্যরকম হেয়ারস্টাইল করার যে ইচ্ছে থেকে চুলটা কেটে ফেলেছিলেন একদিন, সেই ইচ্ছেটাই যেন উধাও হয়ে যায় কোথায়!

আপনার এই মানসিকতার সঙ্গে আমরা একমত! সত্যিই ব্যাংস দেখতে এমনিতে খুব সুন্দর লাগে! কিন্তু কয়েকদিন কাটতে না কাটতেই মনে হয় কেন এভাবে চুলটা কাটলাম! চিন্তা করবেন না, আপনার সাধের ব্যাংস যাতে দীর্ঘদিন ধরে একইরকম আকর্ষণীয় থেকে যায়, তার জন্য 5টি সহজ অথচ দারুণ কায়দার হেয়ারস্টাইল নিয়ে এসেছি আমরা! দেখে নিন চট করে!

 

মাঝে সিঁথি হাফ আপ হাফ ডাউন

মাঝে সিঁথি হাফ আপ হাফ ডাউন

মাথার ওপরের দিকের চুলটা গোছা করে পেছনদিকে কাঁটা বা ক্লিপের সাহায্যে আলগা বেঁধে নিন। একটু এলোমেলো দেখাবে। এবার সামনের ব্যাংস মাঝখানে সিঁথি করে আঁচড়ে মুখের ওপর থেকে সরিয়ে দিন। কাজের জায়গাই হোক, বা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা সেশন, সর্বত্রই এই মিষ্টি হেয়ারস্টাইলটি দারুণ মানানসই!

 

ভেজা চুলে সুন্দরী

ভেজা চুলে সুন্দরী

গ্ল্যামার আর ট্রেন্ডের সঙ্গে পা মিলিয়ে চলেন যে সব মেয়ে আর সেই সঙ্গে একটু এক্সপেরিমেন্ট করতেও পিছপা নন, তাঁদের জন্য এই ওয়েট হেয়ার লুকটি একেবারে আদর্শ! চুলটা আগে শ্যাম্পু করে নিন। তারপরে চুলের গোড়ায় হাত খুলে হেয়ার স্টাইলিং জেল লাগিয়ে চুল পেছনদিক করে আঁচড়ে বা ব্রাশ করে নিন। হয়ে গেলে ফিনিশিং শাইন স্প্রে লাগিয়ে নেবেন!

 

ওয়ান-সাইডেড

ওয়ান-সাইডেড

ব্যাংস কাটার পরে ধারে সিঁথি কাটতে পারছেন না? চেষ্টা করেও হচ্ছে না? হেয়ার স্ট্রেটনার দিয়ে কিন্তু খুব সহজেই ধারে সিঁথি কেটে নিতে পারবেন! চুল ধারে সিঁথি কেটে আঁচড়ে নিন, তারপর স্ট্রেটনার দিয়ে সামনের ব্যাংস স্ট্রেট করে নিন, ব্যাস!

 

এলোমেলো টপ নট

এলোমেলো টপ নট

এই স্টাইলটি করা যেমন অত্যন্ত সহজ, তেমনি খুব ঝটপট হয়েও যায়। আর এভাবে চুল স্টাইল করতে আয়নারও দরকার পড়ে না, কারণ যত এলোমেলো হবে চুল, তত ভালোভাবে খুলবে স্টাইলটি। মুখের সামনে ব্যাংস ফেলে রাখুন, বাকি চুলটা চুড়ো করে টপ নটের মতো বেঁধে নিলেই হয়ে গেল!

 

কার্লের মজা

কার্লের মজা

কার্ল পছন্দ? তা হলে আপনার ব্যাংস কতদিনে বাড়বে তার জন্য অপেক্ষা করে বসে থাকবেন না! বরং সুন্দর করে কার্ল করে নিন! চুল কয়েকটা ভাগে ভাগ করে নিন, তারপর পছন্দমতো টাইট করে বা হালকা করে কার্ল করে ফেলুন! ব্যাংসের নিচের দিকটা ভালো করে কার্ল করুন, তারপর ফিনিশিং স্প্রে করে নিন। তাতে কার্ল অনেকক্ষণ ঠিক থাকবে।