চুলের সঠিক যত্ন করতে চান? জানেন কি, চুল ব্রাশ করার বা আঁচড়ানোরও কিছু নিয়ম আছে? আজ্ঞে হ্যাঁ, চুলের টেক্সচার আর দৈর্ঘ্য অনুযায়ী চুল ব্রাশ করার আলাদা আলাদা পদ্ধতি আছে, চুলের সঠিক যত্ন করতে চাইলে তা জানতেই হবে। তা ছাড়া নিয়মিত চুল আঁচড়ানোর কিছু উপকারিতা রয়েছে। তবে অতিরিক্ত চুল আঁচড়ানোও একেবারেই ঠিক নয়। সেজন্যই আমরা ভাবলাম, চুল আঁচড়ানোর সঠিক পদ্ধতিগুলি আপনার জানা দরকার।

জেনে নিন, কীভাবে সঠিক পদ্ধতিতে চুল আঁচড়ে আপনিও পেতে পারেন মজবুত আর স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল...

 

আগে চুলের নিচের অংশ আঁচড়ে জট ছাড়ান

আগে চুলের নিচের অংশ আঁচড়ে জট ছাড়ান

চুলের নিচের দিক থেকে ছোট ছোট অংশ নিয়ে জট ছাড়িয়ে নিন। চিরুনি দিয়ে জট ছাড়ান, তবে গায়ের জোরে নয়। চুলের গোড়ার দিক থেকে জট ছাড়াতে শুরু করবেন না কখনও, তাতে জট নিচের দিকে নেমে সমস্যা আরও জটিল করে তুলবে।

 

কোমলভাবে জট ছাড়ান

কোমলভাবে জট ছাড়ান

চুলে বিশ্রী জট পড়লে বিরক্ত হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। কিন্তু চুল না ছিঁড়ে জট ছাড়াতে হলে যা দরকার তা হল ধৈর্য! খুব জোরে টেনে টেনে চুল আঁচড়াবেন না। তাতে চুলেরই ক্ষতি হবে, গোড়া থেকে চুল উঠেও আসতে পারে (যা খুবই যন্ত্রণাদায়ক)। ফলে ধীরে ধীরে টানাহ্যাঁচড়া না করে জটগুলো ছাড়িয়ে নিন।

 

অতিরিক্ত চুল আঁচড়ানো নয়

অতিরিক্ত চুল আঁচড়ানো নয়

চুলে বেশিবার চিরুনি চালালে লাভের চেয়ে ক্ষতিই হয় বেশি। অতিরিক্ত ঘর্ষণে চুলের কিউটিকল ভেঙে যায়, তাতে চুল বিবর্ণ আর ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। চুল জটমুক্ত আর মসৃণ হয়ে গেলেই যথেষ্ট, আর বেশি আঁচড়ানোর দরকার নেই।

 

শুকনো অবস্থায় ওয়েভি বা কোঁকড়া চুল আঁচড়াবেন না

শুকনো অবস্থায় ওয়েভি বা কোঁকড়া চুল আঁচড়াবেন না

আপনার চুল যদি স্বাভাবিকভাবেই কোঁকড়া বা ঢেউখেলানো হয়, তা হলে চুল শুকিয়ে যাওয়ার পর আর আঁচড়াবেন না। কোঁকড়া চুল খুব শুকনো আর ভঙ্গুর প্রকৃতির হয়; ভেজা অবস্থায় না আঁচড়ালে চুল ভেঙে ঝরে যেতে পারে, চুলের ডগাও ফেটে যায়। রুক্ষতা আর উড়ো চুল এড়াতে কোঁকড়া বা ওয়েভি চুল একটু ভিজিয়ে নিয়ে আঁচড়ানোই ভালো। তা ছাড়া শুকনো চুল আঁচড়ালে আপনার কার্লগুলো নষ্টও হয়ে যেতে পারে।

 

চিরুনি বাছুন ভেবেচিন্তে

চিরুনি বাছুন ভেবেচিন্তে

একই চিরুনি সব ধরনের চুলের পক্ষে মানানসই নয়। রুক্ষ, মোটা চুলে যেমন চিরুনি দরকার হয়, সূক্ষ্ম, পাতলা চুলে তেমন চিরুনি চলবে না। তাই নিজের চুলের সঙ্গে মানানসই চিরুনি খুঁজে নেওয়া দরকার। কোঁকড়া চুলের জন্য মোটা দাঁড়ার চিরুনি বেছে নিন, পাতলা, সূক্ষ্ম চুলের জন্য আপনার দরকার নরম আর নমনীয় দাঁড়ার ব্রাশ। উপযুক্ত ব্রাশ বা চিরুনি ব্যবহার করলে চুল বশেও থাকবে, সুন্দরও থাকবে!