সারাটা দিন যদি বার্গার আর কোল্ড ড্রিঙ্ক খেয়ে কাটিয়ে দেওয়া যেত, আর কোনও সাইড এফেক্টও হত না, তা হলে কী ভালো হত না? কিন্তু দুঃখের বিষয়, তেমনটা হয় না! বরং দিনের পর দিন এই ডায়েটে থাকলে যেটা হয়, তা হল কিছু স্বাভাবিক শারীরিক বিক্রিয়া, যার মধ্যে সবচেয়ে খারাপ হচ্ছে ব্লোটিং বা পেট ফাঁপা। পেট ফাঁপলে একদিকে স্বাভাবিকভাবেই পেট বড় দেখায়, অন্যদিকে সারাক্ষণ পেটে ভরা ভরা ভাব, অস্বস্তি, এমনকী ব্যথাও হতে পারে। পেটের পাচকতন্ত্রের মধ্যে গ্যাস জমে গিয়ে অথবা ফ্লুইড জমে যাওয়ার কারণেই এমন হয়।

একটা মজার তথ্য শুনুন: ব্লোটিং বা পেট ফাঁপার সমস্যা সবচেয়ে বেশি হয় গরমকালে। গরমের জন্য আমাদের শরীরের শিরা-ধমনী আর রক্তজালকগুলো প্রসারিত হয়ে যায়, ফলে পেটের ভেতরের প্রত্যঙ্গ আর টিস্যুর মধ্যের ফাঁকা জায়গায় আরও বেশি তরল বা ফ্লুইড জমতে থাকে। আর এ থেকেই আরও বেশি ব্লোটিং হয়। এবার মরশুম বদলের সঙ্গে সঙ্গে এই অসহ্য পেট ফাঁপার সমস্যাটাকে আপনি নিশ্চয়ই টেনে নিয়ে যেতে চান না? কীভাবে ডিটক্স করলে গরমকালে ব্লোটিংয়ের হাত থেকে রেহাই পাবেন, কীভাবে সারাজীবন কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ব্লোটিং কমাবেন, তারই কিছু হদিশ দিলাম আমরা।

 

 

সুপারফুড খান

সুপারফুড খান

কিছু খাবারকে যে সুপারফুড বলা হয়, তার কারণ রয়েছে। পেট ফাঁপার পেছনে বিরাট অংশে দায়ী ইনফ্লামেশন বা প্রদাহ। তাই খাবারের তালিকায় রাখুন ব্লুবেরি, অ্যাভোকাডো, মিষ্টি আলু, শসা, জলপাই, চিয়া সিডসের মতো সুপারফুড। পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার আর ডিটক্স করতে সাহায্য করে এ সব খাবার, আর হ্যাঁ, খেতে তো ভালো লাগেই! অনেকেই আছেন যাঁরা একটু বেশি বা ভারী খাবার খাওয়ার পর ব্লোটিংয়ের সমস্যায় ভোগেন, তাই কিছুদিন ভারী খাবার খাওয়া বন্ধ রাখতে হবে। বদলে পরিপাকতন্ত্র সুস্থ রাখতে অল্প পরিমাণে খাবার সারাদিন ধরে খান, আর এই অভ্যাসটাই দীর্ঘদিন ধরে রাখুন। মাঝেমধ্যে একটু অনিয়ম চলতেই পারে, কিন্তু নিজের শরীর নিয়ে সচেতন থাকুন।

 

ফিল্টার করা জল খান

ফিল্টার করা জল খান

ফিল্টার শব্দটার দিকে খেয়াল করুন। সত্যি বলতে আপনি যে জল খান, তা যদি বিশুদ্ধ না হয়, তা হলে তাতে নুন থাকতে বাধ্য। গরমের দিনে নুন শরীরের কোষগুলো থেকে বেশি জল টেনে নেয়, তাতে রক্তে সোডিয়ামের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু শরীর কর্মক্ষম থাকার জন্য সোডিয়ামের ভারসাম্য বজায় থাকা খুব প্রয়োজন। এর ফলে জল জমতে থাকে, ফলে ব্লোটিংয়ের অনুভূতি হয়। তাই সাধারণ জল খাবেন না, সবসময় ফিলটার করা জলই পান করুন।

 

ব্যায়াম

ব্যায়াম

গরম এখন অনেকটাই কম, তাই তাকে তুলে রাখা রানিং শ্যু বের করার সঠিক সময় এটাই! যোগব্যায়াম, ট্রেডমিলে দৌড়োনো, হাঁটাহাঁটি, যাই করুন না কেন, ব্লোটিংয়ের হাত থেকে নিস্তার পেতে ব্যায়ামের বিকল্প নেই। শারীরিক কসরত করলে পেট পরিষ্কার থাকে, এবং শরীরে বাড়তি কিছু জমে থাকলে তা বেরিয়ে যায়। তাই ব্লোটিং কমাতে আর শরীরের গঠন সুন্দর রাখতে ব্যায়াম করুন নিয়মিত।

 

গরমজলে স্নান

গরমজলে স্নান

না, বাজে বকছি না - গরমকালেও সামান্য গরমজল দিয়ে স্নান করলে তার দারুণ ফল পাবেন। গরমজলের উষ্ণ ভাপ পেটের ব্যথা কমায়, আরামের অনুভূতি এনে দেয়। শরীর আরাম পেলে স্ট্রেসের মাত্রাও কমতে থাকে, ফলে পরিপাকতন্ত্র স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে শুরু করে এবং ব্লোটিং কমে। স্নানের সময় ডিটক্সিং বডিওয়াশ ব্যবহার করলে শরীরের পাশাপাশি ত্বকও ডিটক্স করে নিতে পারবেন। লাভ বিউটি অ্যান্ড প্ল্যানেট ন্যাচারাল টি ট্রি অয়েল অ্যান্ড ভেটিভার পিউরিফাই বডিওয়াশ/ ব্যবহার করে দেখুন। এতে রয়েছে টি ট্রি অয়েলের সমস্ত গুণ যা চমৎকারভাবে ডিটক্স করে। আর ভেটিভারের মিষ্টি গন্ধ আপনাকে ভেতর থেকে করে তোলে তরতাজা। Love Beauty & Planet Natural Tea Tree Oil & Vetiver Purify Body Wash

 

চাই ডিটক্স পানীয়

চাই ডিটক্স পানীয়

শরীর থেকে বের করে দিন অবাঞ্ছিত টক্সিন আর অশুদ্ধতা। গরমকাল শেষ হলে ব্লোটিং থেকে মুক্তি পেতে আপনার দরকার কিছু ডিটক্স পানীয়, যা আপনাকে চনমনে করে তোলার পাশাপাশি পেটের স্বাস্থ্য ভালো রাখবে, পেট ফাঁপাও কমাবে। আদা, ডালিমের বীজ, এলাচের মতো স্বাভাবিক উষ্ণ হার্ব দিয়ে বানিয়ে নিন ডিটক্স পানীয়। এই পানীয় আপনার গ্যাস, পেট ফাঁপা আর প্রদাহ কমিয়ে দেবে নিমেষে। স্বাদ অনুযায়ী রেসিপিতে অদলবদল করে নিন আর উপভোগ করুন ডিটক্স পানীয়। পেট ফাঁপা আর ধারেকাছেও ঘেঁষতে পারবে না!