স্বাস্থ্যের দেখভাল বলতে শুধু শরীরের কথাই বোঝায় না, মুখের স্বাস্থ্যও একইরকম জরুরি। আর মুখের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া মানে শুধু দু'বেলা ব্রাশ করা আর বছরে একবার দাঁতের ডাক্তারের কাছে যাওয়া নয়। দাঁত যাতে দীর্ঘদিন শক্তপোক্ত আর ক্ষয়মুক্ত থাকে, তার জন্য প্রতিদিন মুখ আর দাঁতের স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে হবে।

নিশ্চয়ই ভাবছেন ব্রাশ করা ছাড়া আর কীভাবে দাঁতের যত্ন নেওয়া যায়! উপায় বলছি আমরা। রইল দাঁত আর মুখগহ্বরের যত্ন নেওয়ার চারটি উপায় যা আপনার দাঁত রাখবে শক্তসবল আর মুক্তোর মতো ঝকঝকে। প্রসঙ্গত এই চারটি উপায়ই দাঁতের চিকিৎসকদের দ্বারা অনুমোদিত।

 

01. নিয়মিত ফ্লস করুন

01. নিয়মিত ফ্লস করুন

প্রতিদিন দু'বার করে ব্রাশ করা সত্ত্বেও তাতে প্রতিটি দাঁতের প্রতিটি কোনা আর খাঁজ পরিষ্কার হয় না, কারণ ব্রাশের ব্রিসল অত সূক্ষ্ম নয়। তাই দাঁত ঠিকমতো পরিষ্কার করতে অন্তত প্রতি দু'দিন অন্তর একবার ফ্লস করুন।

 

02. মাউথওয়াশ ব্যবহার করুন

02. মাউথওয়াশ ব্যবহার করুন

মাউথওয়াশের গুরুত্ব আমরা অনেকেই স্বীকার করতে চাই না। কিন্তু ডেন্টিস্টরা বলেন মাউথওয়াশের বেশ কিছু উপকারিতা আছে। নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ আটকানো থেকে শুরু করে জীবাণু মেরে ফেলা পর্যন্ত অনেক কিছুই করে মাউথওয়াশ যা টুথপেস্ট অনেক সময়ই করতে পারে না। যদিও মাউথওয়াশ কখনওই ব্রাশিংয়ের বিকল্প নয়, তাও মাউথওয়াশ ব্যবহার করুন। ফ্লোরাইড দেওয়া মাউথওয়াশ আপনার দাঁত সুরক্ষিত রাখে, মুখেরও স্বাস্থ্য রক্ষা করে।

 

03. লেবুজাতীয় ফল দাঁতে লাগাবেন না

03. লেবুজাতীয় ফল দাঁতে লাগাবেন না

একাধিক ঘরোয়া টোটকায় বলা হয় দাঁত থেকে প্লাক কমাতে বা হলদে ভাব দূর করতে লেবু ঘষুন। কিন্তু সেটা দাঁতের স্বাস্থ্যের পক্ষে মোটেও ভালো নয়। লেবুর রসে অ্যাসিডের পরিমাণ খুব বেশি আর তা দাঁতের এনামেল নষ্ট করে দিতে পারে, ফলে দাঁত নষ্ট হয়ে যায়।

 

04. খাওয়াদাওয়ার দিকে নজর রাখুন

04. খাওয়াদাওয়ার দিকে নজর রাখুন

আমরা এমন অনেক খাবার খাই, যা দাঁতে ছোপ ফেলতে পারে। এতে দীর্ঘ মেয়াদে দাঁতের রং নষ্ট হয়ে যায়। তাই অতিরিক্ত চা, কফি, বেশি চিনি দেওয়া বা বেশি হলুদ দেওয়া খাবার এড়িয়ে চলুন। তেমন কোনও খাবার খেলেও সঙ্গে সঙ্গে দাঁত ব্রাশ করে নিন যাতে দাগ বসে না যায়।