কোঁকড়ানো চুল হল অনেকটা একটা অচেনা বন্ধ বাক্সের মতো; বাক্সের ভেতরে কী আছে, কেউ জানে না! এর চেয়ে সত্যি বর্ণনা আর হয় না! রাতে ঘুমোনোর পর সকালে উঠে আপনার কোঁকড়া চুল বাউন্সি থাকবে, নাকি কাকের বাসার মতো দেখাবে, তা আগে থাকতে কিছুতেই বোঝা সম্ভব না! তবে একই সঙ্গে এটাও সত্যি যে, কোঁকড়া চুল বশে আনা এমন কিছু মারাত্মক কঠিন কাজও নয়। চুলের যত্নের সঠিক রুটিন মানলে আর কিছু বিশেষ টিপস কাজে লাগালে সুস্থ ঝলমলে কোঁকড়া চুল পেতে পারেন আপনিও! কীভাবে জানতে চান? রইল পাঁচটি বিশেষজ্ঞের টিপস। মেনে চলুন আর কার্ল রাখুন সুস্থ, বাউন্সি! কারণ জীবনটা নিখুঁত নয়, অন্তত কার্লগুলো নিখুঁত হোক!

 

01. চুলে হেয়ার মাস্ক লাগান

01. চুলে হেয়ার মাস্ক লাগান

সাধারণত কার্লি চুল শুষ্ক, রুক্ষ ধরনের হয়, সবসময় এই চুলে বাড়তি আর্দ্রতা আর পুষ্টির প্রয়োজন পড়ে। ফলে ডাভ ইনটেন্স ড্যামেজ রিপেয়ার হেয়ার মাস্ক/ Dove Intense Damage Repair Hair Mask-এর মতো ময়শ্চারাইজিং হেয়ার মাস্ক দিয়ে সপ্তাহে একদিন নিয়ম করে ডিপ কন্ডিশনিং করলে কোঁকড়া চুল ভালো থাকে। কেরাটিন অ্যাকটিভ যুক্ত এই মাস্ক চুলের ক্ষতি মেরামত করে চুল মসৃণ করে, জট কমায় আর চুল অনেক বেশি বশে রাখতে সাহায্য করে। এই মাস্ক চুলের গভীরে ময়শ্চার ধরে রেখে চুল রুক্ষ হতে দেয় না। সপ্তাহে একদিন শ্যাম্পু করার পর আর কন্ডিশনার লাগানোর আগে ব্যবহার করুন আর দেখুন কীভাবে চুলের ভোল পালটে যায়!

 

02. শ্যাম্পু আর কন্ডিশনার বাছুন বুদ্ধি করে

02. শ্যাম্পু আর কন্ডিশনার বাছুন বুদ্ধি করে

কোঁকড়া চুলের দরকার বিশেষ যত্ন, আর তার জন্য হেয়ার কেয়ার প্রডাক্ট বাছাই করা উচিত ভাবনাচিন্তা করে। এমন প্রডাক্ট কিনুন যাতে নারকেল তেল, জোজোবা অয়েল, আর্গান অয়েল, কেরাটিনের মতো পুষ্টিকর উপাদান আছে। লাভ বিউটি অ্যান্ড প্ল্যানেট ন্যাচারাল আর্গান অয়েল অ্যান্ড ল্যাভেন্ডার অ্যান্টি-ফ্রিজ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার/ Love Beauty & Planet Natural Argan Oil & Lavender Anti-Frizz Shampoo and Conditioner আমাদের প্রথম পছন্দ। খাঁটি মরোক্কান আর্গান অয়েল এবং 100% অর্গানিক নারকেল তেলে তৈরি এই শ্যাম্পু ও কন্ডিশনারে কোনও প্যারাবেন, সিলিকন বা কৃত্রিম রং নেই, এবং আপনার কোঁকড়া চুলে পুষ্টি জুগিয়ে তা সুন্দরভাবে বশে রাখতে সাহায্য করে। হাতে তোলা ফরাসি ল্যাভেন্ডারের সুগন্ধ আপনার ইন্দ্রিয়গুলোকেও শান্ত আর স্নিগ্ধ রাখবে। আর কী চাই বলুন!

 

03. চুল শুকোনোর সঠিক উপায় বেছে নিন

03. চুল শুকোনোর সঠিক উপায় বেছে নিন

কোঁকড়া চুল শুকোনো একটা কঠিন কাজ, সঠিকভাবে না করলে চুলে জট পেকে যেতে পারে, চুল রুক্ষও হয়ে যায়। খোলা বাতাসে চুল শুকোলে মাইক্রোফাইবার টাওয়েল বা সুতির টিশার্ট দিয়ে চুলের বাড়তি জল শুষে নিন। আর চুল ব্লো-ড্রাই করলে ডিফিউজার অবশ্যই ব্যবহার করুন, আর চুলের শেষভাগটা ব্লো-ড্রাই করুন। গোড়ার দিকটা করবেন না। তাতে চুল বিশ্রীভাবে ফোলা দেখাবে না।

 

04. ডগা ফাটা এড়াতে নিয়মিত চুল ছেঁটে ফেলুন

04. ডগা ফাটা এড়াতে নিয়মিত চুল ছেঁটে ফেলুন

ট্রিম করা কোঁকড়া চুলের স্বাস্থ্য ভালো হয় এবং তা বশে রাখাও সহজ। সবধরনের চুলেই ডগা ফাটতে পারে এবং নিয়মিত চুল ছেঁটে ফেললে চুল সামলানো সহজ হয়, চুলের টেক্সচারও ভালো থাকে। প্রতি দু' মাস অন্তর চুল ট্রিম করে নিন, চুল খুব ভালো থাকবে।

 

05. সঠিক হেয়ারস্টাইল বেছে নিন

05. সঠিক হেয়ারস্টাইল বেছে নিন

ফোটো সৌজন্য: @POPSUGAR UK

আপনার চুল কীভাবে স্টাইল করছেন, তা চুলে অনেকটাই প্রভাব ফেলে। ফলে আপনার চুল যদি কোঁকড়ানো হয়, তা হলে এমনভাবে স্টাইল করুন, যাতে কার্ল নষ্ট না হয়ে যায় বা প্রচুর হিট স্টাইলিংয়ের প্রয়োজন না হয়। আমাদের পরামর্শ হল, সাধারণ বিনুনি বাঁধুন। সহজ টপ নট বা এলোমেলো হাফ বান করেও রাখতে পারেন।