মোমপালিশ করা নিখুঁত ঝকঝকে ত্বক কি পাওয়া অতই সহজ? তার জন্য বহু কাঠখড় পোড়াতে হয়, প্রতিদিন শুধু এক গেলাস লেবুজল খেয়ে তা পাওয়া সম্ভব নয়! অনেক মেয়েই এ কথা জানেন! আর ঝকঝকে ত্বকের পথে অন্যতম বড় বাধা হল ব্ল্যাকহেডস। কাজেই সবার আগে আপনাকে ব্ল্যাকহেডস কমানোর ব্যাপারে মন দিতে হবে! আমরা জানাচ্ছি কিছু কৌশল যা আপনাকে মুখ থেকে সহজেই ব্ল্যাকহেডস কমাতে সাহায্য করবে.

 

আনারসের স্ক্রাব

আনারসের স্ক্রাব

আনারসে ব্রোমেলিন নামে একধরনের উৎসেচক থাকে, যা ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে সক্ষম। তাই আনারস দিয়ে মুখ এক্সফোলিয়েট করুন। আনারসের শাঁসে কিছুটা টক দই যোগ করলে দ্বিগুণ উপকার পাবেন, সঙ্গে ত্বকের আর্দ্রতাও সুরক্ষিত থাকবে।

কীভাবে করবেন:

এক কাপ ভর্তি আনারসের টুকরোর সঙ্গে আধ কাপ টক দই যোগ করে ব্লেন্ড করুন। ব্লেন্ডারের স্পিড কমিয়ে রাখবেন। মিশ্রণটা মসৃণ হয়ে এলে তাতে এক টেবিলচামচ ব্রাউন সুগার যোগ করুন।

মুখের টি-জোনে এই মিশ্রণটা লাগিয়ে নিন, নাকের দু'পাশে ভালোভাবে লাগাবেন। তারপর হালকা হাতে স্ক্রাব করুন। হয়ে গেলে হালকা গরম জলে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিন।

 

নারকেল তেল

নারকেল তেল

ত্বকের যে কোনও সমস্যাতেই কাজে লাগে নারকেল তেল। ব্ল্যাকহেডস সারাতেও নারকেল তেলের এই অতি পুরনো টোটকাটি দারুণ কার্যকর! এই ঘরোয়া টোটকাটি ত্বকের রোমছিদ্রের গভীরে ঢুকে তেলময়লা পরিষ্কার করে রোমছিদ্র বন্ধ হতে দেয় না এবং ব্ল্যাকহেডস দূরে রাখে।

কীভাবে করবেন:

বাটিতে নারকেল তেল নিয়ে মাইক্রোওয়েভে মিনিট দুয়েক গরম করে নিন। তেল ঠান্ডা হয়ে গেলে দু' টেবিলচামচ লেবুর রস যোগ করুন। এই মিশ্রণটি পুরো মুখে, বিশেষ করে ব্ল্যাকহেডস রয়েছে এমন জায়গাগুলোয় ভালো করে লাগান। 10 মিনিট রেখে ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। 

 

চারকোল মাস্ক

চারকোল মাস্ক

এমন কোনও ফেস মাস্ক খুঁজছেন যা ব্ল্যাকহেডস দূর করার সঙ্গে সঙ্গে ত্বককে আরামও দেবে? এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চাইলে বেছে নিন চারকোল মাস্ক!

চারকোল মাস্ক ত্বকের বন্ধ হয়ে যাওয়া রোমছিদ্রের মুখ খুলে দেয়, সমস্তরকম ধুলোময়লা, দূষণ মুক্ত করে ত্বক পরিষ্কার রাখে। তা ছাড়া ব্ল্যাকহেডস কমানোর সহজ উপায় এই চারকোল মাস্ক।

 

ওটমিল মিক্সচার

ওটমিল মিক্সচার

ব্ল্যাকহেডস, হোয়াইটহেডস, দুইই ঝটপট কমিয়ে ফেলতে ব্যবহার করুন এই ঘরোয়া মাস্কটি। মুখের মৃত কোষ এক্সফোলিয়েট করতে সাহায্য করে ওটমিল। এই মৃত কোষই ব্ল্যাকহেডস হওয়ার মূল কারণ। 

কীভাবে করবেন: 

সিকি (1/4) কাপ ওটমিলের সঙ্গে দু' টেবিলচামচ টক দই আর দু' টেবিলচামচ কাঁচা মধু যোগ করে ব্লেন্ড করুন। হয়ে গেলে তাতে দিন কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল। মুখে লাগিয়ে 10 মিনিট রাখুন। তারপর হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে একবার কি দু'বার করলে খুব ভাল ফল পাবেন।

 

বেকিং সোডা

বেকিং সোডা

চিরকালের মতো ব্ল্যাকহেডসের ঝামেলা থেকে মুক্তি চাইলে বেছে নিন এই অতি সাধারণ রান্নাঘরের উপাদানটি। বেকিং সোডা খুবই শক্তিশালী এক্সফোলিয়েটর, মুখ থেকে মৃত কোষের আস্তরণ তুলে ফেলতে জুড়ি নেই তার।

কীভাবে করবেন:

দু' টেবিলচামচ বেকিং সোডায় পরিমাণমতো জল দিয়ে পাতলা পেস্ট তৈরি করুন। মুখের যে সব জায়গায় ব্ল্যাকহেডস রয়েছে সেখানে এই মিশ্রণটি লাগিয়ে 5 -10 মিনিট রেখে দিন। তারপর হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। তবে যাঁদের সেনসিটিভ ত্বক, তাঁরা এই টোটকাটি ব্যবহার করবেন না।

বাকিদের ক্ষেত্রে এই টোটকাটি লাগানোর পর ত্বকে কিছুটা লালচেভাব দেখা দিতে পারে, তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই তা ঠিক হয়ে যাবে। সপ্তাহে একবার এই টোটকাটি ব্যবহার করলে ফল পাবেন।