মুখে ব্রণ বেরোলে মন খারাপ হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক, আর সেই ব্রণর হামলা থেকে বাঁচার জন্য কত কাঠখড়ই না পোড়াতে হয়! কিন্তু কৈশোর পেরিয়ে প্রাপ্তবয়স্কের গণ্ডিতে ঢুকে পড়ার পরেও যদি পিছু না ছাড়ে ব্রণ? অ্যাডাল্ট অ্যাকনে কিন্তু বেশ যন্ত্রণাদায়ক, এবং তা কমানোও খুব সহজ নয়! তবে ঠিকমতো ত্বকের যত্ন নিলে নিয়ন্ত্রণে থাকবে আডাল্ট অ্যাকনেও!

যাঁদের মুখে খুব ব্রণ বেরোয়, তাঁদের দরকার এমন ত্বক পরিচর্যার রুটিন, যাতে অতিরিক্ত সেবাম উৎপাদন নিয়ন্ত্রণে থাকে, রোমছিদ্র পরিষ্কার থাকে আর পুরনো ব্রণ দ্রুত শুকিয়ে যায়। বাজারে হাজারো সামগ্রী পাওয়া যায় যার প্রতিটিই আপনাকে নিখুঁত, দাগছোপহীন ত্বকের প্রতিশ্রুতি দেবে। কিন্তু এতরকম সরঞ্জামের ভিড়ে কী করে বুঝবেন কোনটা আপনার কাজে লাগবে? কীভাবেই বা তৈরি করে নেবেন সহজ ত্বক পরিচর্যার রুটিন? এর উত্তর সহজ! ত্বক পরিচর্যার কোনও সরঞ্জাম বেছে নেওয়ার আগে উপাদানগুলি দেখে নিন! জানি, প্রতিটি উপাদানের সঙ্গে আপনি পরিচিত নন, তাই আমরাই সাহায্যের হাত বাড়ালাম! আপনার জন্য আমরা তৈরি করে দিয়েছি এমন একটি স্কিনকেয়ার রুটিন যা তৈরি হয়েছে দারুণ সব উপাদান দিয়ে। এই রুটিন আপনাকে সাহায্য করবে ব্রণমুক্ত থাকতে!

 

ধাপ 1: ত্বক ডিপ ক্লিনজ করুন

ধাপ 1: ত্বক ডিপ ক্লিনজ করুন

মুখ ধোওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই মুখের টি জোন তেলতেলে হয়ে যায়? এর অর্থ, আপনার ত্বক অতিরিক্ত তেল বা সেবাম উৎপাদন করছে আর আপনি এই মুহূর্তে যে ফেসওয়াশটি ব্যবহার করছেন সেটি সেবাম নিয়ন্ত্রণের পক্ষে যথেষ্ট নয়! এই সমস্যার মোকাবিলা করতে আপনার দরকার ডিপ ক্লেনজিং ফেসওয়াশ, যেমন পন্ড'স অয়েল কন্ট্রোল ফেস ওয়াশ/ Pond’s Oil Control Face Wash। এটি কোমলভাবে ত্বকের অতিরিক্ত তেল কমায় আর আপনার ত্বক হয়ে ওঠে তরতাজা আর উজ্জ্বল!

 

ধাপ 2: সপ্তাহে একবার এক্সফোলিয়েট করুন

ধাপ 2: সপ্তাহে একবার এক্সফোলিয়েট করুন

এক্সফোলিয়েশন ত্বকের উপরের স্তর থেকে মৃত ত্বকের আস্তরণ দূর করে, রোমছিদ্র পরিষ্কার করে এবং ত্বকের গভীরে জমে থাকা ধুলোময়লা বের করে আনে। তাই সপ্তাহে একদিন ত্বক এক্সফোলিয়েট করা খুব দরকার। তবে মুখে ব্রণ থাকলে এক্সফোলিয়েট করবেন না, কারণ ঘষাঘষির কারণে ব্রণ আরও বেড়ে যেতে পারে। স্যালিসাইলিক অ্যাসিড আর কাঠবাদামের খোসার গুঁড়ো সমৃদ্ধ সেন্ট ইভস অ্যাকনে কন্ট্রোল এপ্রিকট স্ক্রাব / St. Ives Acne Control Apricot Scrub ব্রণ কমানোর পক্ষে খুবই উপযোগী। ডার্মাটোলজিস্ট দ্বারা পরীক্ষিত এবং প্যারাবেন মুক্ত এই ফরমুলাটি খুবই কোমল আর নিরাপদ। এটি নিয়মিত ব্যবহার করলে আপনার ত্বক মসৃণ হয়ে উঠবে।

 

ধাপ 3: হালকা ময়শ্চারাইজার লাগান

ধাপ 3: হালকা ময়শ্চারাইজার লাগান

যদি ভেবে থাকেন তেলতেলে ত্বকে ময়শ্চারাইজার মাখতে হয় না, খুবই ভুল ভেবেছেন! সত্যি বলতে, আপনার ত্বকে যে অতিরিক্ত তেল তৈরি হয়, তার অন্যতম কারণ আর্দ্রতার অভাব। শুকনোভাব সামাল দিতেই ত্বক বাড়তি সেবাম তৈরি করে। তবে ময়শ্চারাইজার বেছে নেওয়ার আগে ত্বকের ধরনের কথা মাথায় রাখুন। যেহেতু আপনার ত্বক তেলতেলে আর ব্রণ রয়েছে, তাই আপনার দরকার হালকা ময়শ্চারাইজার যা ত্বক আর্দ্র রাখবে, কিন্তু রোমছিদ্র বন্ধ করবে না। সিম্পল কাইন্ড টু স্কিন হাইড্রেটিং লাইট ময়শ্চারাইজার / Simple Kind To Skin Hydrating Light Moisturiser খুব দ্রুত ত্বকে শুষে যায় এবং কোনওরকম চটচটে বা তেলতেলে অনুভূতিও হয় না।

 

ধাপ 4: বাদ দেবেন না সানস্ক্রিন

ধাপ 4: বাদ দেবেন না সানস্ক্রিন

খুব ভালো করে বুঝে নিন; প্রতিদিনের ত্বক পরিচর্যার রুটিনে সানস্ক্রিন থাকতেই হবে! জানি আপনারা বলবেন, সানস্ক্রিন মাখলে ত্বক আরও তেলা আর নির্জীব দেখায়! তার মূল কারণ হল আপনারা তেলতেলে ত্বকেও ক্রিম-বেসড সানস্ক্রিন মাখছেন! তা না করে বেছে নিন জেল-বেসড ফরমুলা, এসপিএফ যেন অন্তত 30 হয়! জেল-বেসড সানস্ক্রিন আপনাকে চমৎকার ম্যাট ফিনিশ এনে দেবে! ল্যাকমে সান এক্সপার্ট এসপিএফ 50 পিএ+++ আলট্রা ম্যাট জেল সানস্ক্রিন/ Lakme Sun Expert SPF 50 PA+++ Ultra Matte Gel Sunscreen খুবই হালকা এবং এটি আপনার ত্বককে আলট্রা ভায়োলেট এ এবং বি, দুটির হাত থেকেই রক্ষা করে। এই সানস্ক্রিনটি আপনি মেকআপ করার আগেও মেখে নিতে পারেন।

 

ধাপ 5: স্পট ট্রিটমেন্ট

ধাপ 5: স্পট ট্রিটমেন্ট

মুখে ব্রণ বেরোলেই ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই, বরং আপনার ডার্মাটোলজিস্টের সঙ্গে পরামর্শ করে হাতের কাছে রাখুন কোনও টপিকাল মলম। বেনজয়েল পারঅক্সাইড বা স্যালিসাইলিক অ্যাসিড যুক্ত মলম সবচেয়ে কাজের, তবে এ ধরনের মলম থেকে ত্বকে জ্বালাভাব বা কালো ছোপের মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। বিকল্প হিসেবে ভরসা রাখতে পারেন ডার্মালজিকা ব্রেকআউট ক্লিয়ারিং এমার্জেন্সি স্পট ফিক্স/ Dermalogica Breakout Clearing Emergency Spot Fix ট্রিটমেন্টের ওপর। এতে বেনজয়েল পারঅক্সাইড আছে যা রোমছিদ্রের গভীরে লুকিয়ে থাকা ব্রণ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে এবং ব্যথা কমায়। তবে এই প্রডাক্টটি শুধু ব্রণর উপরেই লাগাবেন, সারা মুখে মাখবেন না।

 

ধাপ 6: সারা রাতের ট্রিটমেন্ট

ধাপ 6: সারা রাতের ট্রিটমেন্ট

বারবার ব্রণ হলে আপনার ত্বকের রং নষ্ট হয়ে যায়, ত্বকে দাগছোপ গর্ত তৈরি হয়। ফলে ব্রণর সমস্যাযুক্ত ত্বকের পরিচর্যার শেষ ধাপ হিসেবে এমন ট্রিটমেন্ট অবশ্যই থাকা উচিত যা সারা রাত ধরে ত্বকের যত্ন নিয়ে ব্রণর মোকাবিলা করবে, তেল নিঃসরণ নিয়ন্ত্রণে রাখবে এবং দাগছোপও কমিয়ে দেবে একই সঙ্গে। স্যালিসাইলিক অ্যাসিড-বেসড ডার্মালজিকা ওভারনাইট ক্লিয়ারিং জেল/ Dermalogica Overnight Clearing Gel কোমলভাবে ত্বকের উপরিভাগ এক্সফোলিয়েট করে রোমছিদ্র বন্ধকারী মৃত কোষ সরিয়ে দেয়, আর সঙ্গে ত্বকের তেল নিঃসরণও নিয়ন্ত্রণে রাখে।