যে মুহূর্তে আপনি ভাবছেন নিজের স্পর্শকাতর ত্বক পরিচর্যার রুটিন/ sensitive skincare routine নিখুঁত আয়ত্ত করে ফেলেছেন, ঠিক তখনই মুখে একটা জ্বালাভাব অনুভব করলেন! আপনার ত্বক কি কোনও কিছুতে প্রতিক্রিয়া দেখাল? চিন্তা করবেন না, আমরা জানি সেনসিটিভ ত্বকের জন্য সঠিক রুটিন তৈরি করা কতটা কঠিন, কারণ যাই করুন ত্বকে জ্বালাভাব চুলকানি দেখা দেবেই! জেনে নিন ত্বক পরিচর্যার ক্ষেত্রে কী ভুল করছেন আর কীভাবে তা ঠিক করতে পারেন।

 

01. রেটিনলের অতিরিক্ত ব্যবহার

01. রেটিনলের অতিরিক্ত ব্যবহার

ত্বকে রেটিনলের অনেক উপকারিতা থাকলেও এটি কোনও কোমল অ্যান্টি-এজিং ফরমুলা নয়। এর ফলে সেনসিটিভ ত্বকে জ্বালা, লালচেভাব, শুষ্কভাব, চামড়া ওঠা, র‍্যাশ বেরোনোর মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই রেটিনল দেওয়া প্রডাক্ট ব্যবহার করার আগে ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। কিছু রেটিনলে উচ্চমাত্রায় সক্রিয় উপাদান থাকে যা ত্বকে লাগানোর পক্ষে নিরাপদ নয়। রেটিনলের বদলে রেভিনেজের মতো কোমল বিকল্প বেছে নিন যা থেকে একই উপকারিতা পাবেন, বিপত্তির ভয়ও থাকবে না।

 

02. ত্বকে বেশি ঘষাঘষি

02. ত্বকে বেশি ঘষাঘষি

হয়তো ত্বকের জন্য সঠিক প্রডাক্টই কিনেছেন, কিন্তু তা ঠিকমতো লাগাচ্ছেন কি? বেশি ঘষাঘষি করলে ত্বক নষ্ট হয়ে যেতে পারে, তাতে প্রদাহ বেড়ে যায় এবং ত্বকের নিচের সূক্ষ্ম শিরাউপশিরা আর রক্তজালকগুলো ছিঁড়ে যাওয়ার ভয় থাকে। ফলে ত্বকে ক্ষত দেখা দেয়। কাজেই ত্বকে কোনও কিছু লাগানোর সময় কোমলভাবে লাগাবেন।

 

03. প্রডাক্টের কারণে সমস্যা

03. প্রডাক্টের কারণে সমস্যা

মুখে যে সব প্রডাক্ট মাখছেন, তাতে কি সুগন্ধি, অ্যালকোহল, ডাই, বা রং রয়েছে? এই সব উপাদান ত্বকে সমস্যা তৈরি করে, এগজিমা বা সোরিয়াসিসের মতো সমস্যা বাড়িয়ে তোলে, কনট্যাক্ট ডার্মাটাইটিসের আশঙ্কা বেড়ে যায়, ত্বক অতিরিক্ত শুষ্কও হয়ে যায়। তাই অ্যালার্জেন বিহীন, রাসায়নিকমুক্ত প্রডাক্ট ব্যবহার করুন। যেমন, ফেসওয়াশ অবশ্যই কোমল হতে হবে। সিম্পল কাইন্ড টু স্কিন ময়শ্চারাইজিং ফেসিয়াল ওয়াশ/ Simple Kind to Skin Moisturising Facial Wash তেমনই একটি আদর্শ ফেসওয়াশ। সাবানমুক্ত এই ফেসওয়াশটিতে প্রো-ভিটামিন বি, ভিটামিন ই আর বিসাবোলল রয়েছে। এতে কোনও কৃত্রিম সুগন্ধ, রং, প্যারাবেন, ডাই বা অ্যালকোহল নেই। তার সঙ্গে এটি নন-কমেডোজেনিক ও হাইপোঅ্যালার্জেনিক, ফলে সেনসিটিভ ত্বকের পক্ষে আদর্শ।

 

04. ভুল সানস্ক্রিনের ব্যবহার

04. ভুল সানস্ক্রিনের ব্যবহার

টিটানিয়াম ডাইঅক্সাইড বা জিঙ্ক অক্সাইডের মতো উপাদানযুক্ত ফিজিক্যাল সানস্ক্রিন মাখুন। এ সব মিনারেল প্রতিক্রিয়াশীল ত্বকে অনেক কোমলভাবে কাজ করে। অক্সিবেনজন ও অ্যাভোবেনজনের মতো সক্রিয় উপাদানযুক্ত কেমিক্যাল সানস্ক্রিন ব্যবহার করবেন না।

 

05. একাধিক স্কিনকেয়ার প্রডাক্ট ব্যবহার

05. একাধিক স্কিনকেয়ার প্রডাক্ট ব্যবহার

বাজারে রোজই নতুন নতুন প্রডাক্ট আসে, প্রতিটিই প্রতিশ্রুতি দেয় ত্বকের সব সমস্যা সমাধান করে দেওয়ার। ফলে উৎসাহী হয়ে এই সব প্রডাক্টই ত্বকে মেখে ফেলার একটা প্রবণতা দেখা দেওয় স্বাভাবিক। কিন্তু বাস্তব হল, মুখে যত বেশি প্রডাক্ট মাখবেন, ত্বকে প্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ার আশঙ্কা ততই বেশি হবে। ময়শ্চারাইজার ভেবে একাধিক ক্রিম মাখার আর একটা সমস্যা হল, এ সব ক্রিমে স্যালিসাইলিক অ্যাসিড, গ্লাইকলিক অ্যাসিড এবং রেটিনলের মতো কড়া উপাদান থাকে। তাই ত্বকে কী মাখছেন সে ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। সিম্পল কাইন্ড টু স্কিন হাইড্রেটিং লাইট ময়শ্চারাইজার/ Simple Kind to Skin Hydrating Light Moisturiser -এর মতো হালকা ময়শ্চারাইজার মাখুন। এতে ভিটামিন ই, প্রো-ভিটামিন বি5, বোরেজ অয়েলের গুণ রয়েছে, এ ছাড়া এতে কোনও কৃত্রিম সুগন্ধ, রং, প্যারাবেন, ডাই বা অ্যালকোহল নেই।